Vivekananda Vidyamandir

Vivekananda Vidyamandir

Vivekananda Vidyamandir, Agarpara is a Bengali and English Medium Pre-primary and Primary School. You’re entitled not to.

Our Story

Welcome to the official page of Vivekananda Vidyamandir, Agarpara, a private Bengali and English Medium educational institution for Play-group, Pre-Primary and Primary level children. Following the ideals of Ramkrishna-Saradamoni-Vivekananda, Vivekananda Vidyamandir was established in 1958 by late Sri Samarendra Maitra to impart holistic and balanced education to children so a

Operating as usual

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 07/12/2023

ENGLISH MEDIUM

Umbrellas are like sunshine in the rain 🌧️🌧️☔

Class 1

07/12/2023

।। যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় ।।

অগ্নিযুগের বাংলার বীর বিপ্লবী, স্বাধীনতা সংগ্রামী যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়, ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে এক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নাম। তিনি 'বাঘাযতীন' নামে পরিচিত। ঐতিহাসিক বুড়িবালামের যুদ্ধে তাঁর প্রবল সাহসিকতার নিদর্শন আজও বাঙালির কাছে স্মরনীয়।

১৮৭৯ সালের ৭ই ডিসেম্বর অধুনা বাংলাদেশের কুষ্টিয়া জেলায় যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম হয়। তাঁর বাবার নাম উমেশচন্দ্র মুখোপাধ্যায় ও মায়ের নাম শরৎশশী দেবী। যতীনের মা দেশাত্মবোধক নানা রচনা পড়তে ভালোবাসতেন এবং রবীন্দ্র ভাবাদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে নিজের ছেলে মেয়েদেরও অনুপ্রাণিত করার চেষ্টা করতেন। মূলত সেই কারণেই যতীনের মধ্যে ছোটোবেলা থেকেই এক দৃঢ়চেতা দেশপ্রেমিক সত্ত্বার উন্মেষ ঘটেছিল। নির্ভীক চিন্তা, সত্যনিষ্ঠা এবং পরোপকারিতার জন্য তিনি বিখ্যাত ছিলেন।

১৮৯৫ সালে এন্ট্রান্স পাশ করে কলকাতার সেন্ট্রাল কলেজে ভর্তি হন তিনি। এই সময় স্বামী বিবেকানন্দের পথ অনুসরণ করে আধ্যাত্মিকভাবে দেশকে স্বাধীন করার লক্ষ্যে শরীরচর্চা করার জন্য অম্বু গুহের কুস্তির আখড়ায় ভর্তি হন। এর পরবর্তী সময় থেকেই বিপ্লবী যতীনের জন্ম হয়।

সেইসময় প্লেগ রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটলে যতীন ভগিনী নিবেদিতার সঙ্গে প্লেগ রোগীদের সেবা করতে উদ্যোগী হন। এই সময়েই তাঁর গ্ৰামে মানুষখেকো বাঘের উপদ্রব হয়। বাঘের সঙ্গে যতীন্দ্রনাথের মরণপন যুদ্ধ হয় এবং অবশেষে তিনি বাঘটিকে মারতে সফল হন। এই ঘটনার পর তাঁকে 'বাঘাযতীন' আখ্যা দেওয়া হয়।

১৯০৭ সালে ইংরেজ সামরিক অফিসার মর্ফি এবং লেফটেন্যান্ট সমারভিলের সঙ্গে যতীনের সংঘাত হয় ও তাঁকে গ্ৰেপ্তার করা হয়। তাঁর গ্ৰেপ্তারির খবরে সারা দেশে আগুন জ্বলে ওঠে।

বাঘাযতীন অনুভব করেছিলেন ইংরেজদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য সশস্ত্র সংগ্রাম প্রয়োজন। ১৯০২ সালে 'অনুশীলন সমিতি' গড়ে তোলা হয় ও বাঘাযতীন ছিলেন প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে অন্যতম একজন। এর মাধ্যমেই জন্ম হয় 'যুগান্তর' দলের। দলটি গোপনে যুব সমাজের মধ্যে দেশের প্রতি জাতীয়তাবাদ গড়ে তোলার কাজ সফলভাবে করতে থাকে। ১৯০৬ সালে মেধাবী ছাত্রদের বিদেশে গিয়ে শিক্ষা গ্রহনের জন্য বৃত্তির ব্যবস্থা করেন তিনি।

বেঙ্গল পুলিশের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট এবং গোয়েন্দা কর্তা শামসুর আলমকে হত্যার ফলে যতীনকে গ্ৰেপ্তার করা হয়। কোনো উপযুক্ত প্রমাণ না থাকায় তাঁকে মুক্ত করা হলেও গৃহবন্দী করে রাখা হয়। ১৯১৩ সালে রাসবিহারী বসু ভারতে এসে যতীন্দ্রনাথের সঙ্গে দেখা করে স্থির করেন সশস্ত্র বিদ্রোহ শুরু করা হবে।

১৯১৫ সালের ৯ সেপ্টেম্বর ইংরেজ সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র যুদ্ধে অবতীর্ণ হন যতীন্দ্রনাথ। সূর্যাস্তের আগেই তাঁকে গুরুতর আহত অবস্থায় বালেশ্বরে সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ১০ সেপ্টেম্বর বালেশ্বরে যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু হয়। ১৯৫৮ সালে তাঁকে নিয়ে বাংলা চলচ্চিত্র নির্মাণ হয় 'বাঘাযতীন' নামে। তাঁর নামে কলকাতার একটি অঞ্চলকে 'বাঘাযতীন' নামে নামাঙ্কিত করা হয়েছে।

আজ ১৪৪তম জন্মবার্ষিকীতে আমরা তাঁকে শ্রদ্ধা জানাই।।

- শ্রদ্ধাজ্ঞাপনে বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা মধুরিমা দাস

03/12/2023

Vivekananda Vidyamandir Vivekananda Vidyamandir, Agarpara is a Bengali and English Medium Pre-primary and Primary School.

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 30/11/2023

ENGLISH MEDIUM

Cotton printing done by Pre-nursery students 😊

30/11/2023

Remembering Sir Winston Churchill....

Sir Winston Leonard Churchill, one of the strongest leaders of the 20th century, a British statesman, brilliant orator, prolific writer, and a Nobel laurate, who became the prime minister of Britain twice, was crucial for Britain's perseverance during the uncertain times for the British people. He was an inspirational leader at the time of World War II, in which he would lead Britain to victory.

On 30th November 1874, Winston Churchill was born in an aristocratic governing elite family. His father Lord Randolph Churchill was an MP and mother Jennie was from an wealthy American business family. He did not score high grades at school but had fascination for militarism which saw him graduating from Royal Military College in 1895.

After joining the British army, Winston was posted to a war zone in Cuba. Working as a soldier and a journalist, he spent times in India, Sudan, and South Africa, reporting unfolding events to British newspapers. He travelled to different parts of India and embarked on a self-education program and read a wide range of authors, the books sent by his mother.

Political office ran in his blood, as he joined conservative party in 1900 and became Member of Parliament. Apart from two years, he remained MP from 1900 to 1964.

In 1914 during First World War, Churchill oversaw the Gallipoli campaign as the First Lord of the Admiralty. The disastrous outcome of the campaign led to his demotion in the army. But the failure could not stop his spirit as in his own words "Kites rise highest against the wind, not with it".

At the outbreak of the Second World War in 1939, he was re-appointed as the First Lord of the Admiralty. In 1940, he was appointed as the Prime Minister, succeeding Neville Chamberlain, to lead an all-party war-time coalition government, at the age of 65. His age never deterred his determination as he headed the five-man war cabinet. He assumed office on 10 May, the day N**i Germany invaded France, Belgium, Netherlands, and Luxembourg.

Churchill’s leadership remarkably influenced the course of the war which finally led to the victory of the allied forces in 1945. During the dark early days, he used his words as weapons as his speeches were regarded as most powerful ever given in the English language. His strength was his determination and rhetoric that made him fight against Hitler's Germany, essential for morale, unity and instilling a strong sense of leadership.

From inception of the war, Churchill continually maintained strong relations with the US and was instrumental in bringing the allied forces - Britain, the US, and Russia, together to fight the war against the N**i Germany. He extensively travelled within the country and overseas locations to remain with the people, boosting morales, overseeing the conduct of the war, and influencing its course.

Winston Churchill was an honourable multi-faceted personality, as well as charming one, and it was these qualities, not just his famous defiance that made him Prime Minister for the second time in 1951. Ill health forced to his retirement in 1955.

Churchill’s views on imperialism were often debated including his comments on Indian independence. His slow actions and words on the Bengal famine were severely criticised. Following India’s independence in 1947, he took a more pragmatic view towards the empire.

Churchill’s oratory and writings have been greatly admired. He was also an amateur artist, an amateur bricklayer - constructing buildings and garden walls, and bred butterflies. In recognition of his mastery of historical and biographical description and oratorial output, Churchill received Nobel Prize in literature in 1953.

This dynamic personality breathed his last on 24th January 1965. His strategic foresight, driving passion, unstoppable personality were the core qualities that made him an effective leader and statesman, whose determination saved the world from fascist N**i regime. For him we can quote "The price of greatness is responsibility".

- By our teacher Mousumi Indra

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 23/11/2023

ENGLISH MEDIUM

Creativity is the natural order of life.

Class 1

20/11/2023

আগামী শিক্ষাবর্ষের ছাত্র-ছাত্রীদের ভর্তি চলছে।

Vivekananda Vidyamandir Vivekananda Vidyamandir, Agarpara is a Bengali and English Medium Pre-primary and Primary School.

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 16/11/2023

ENGLISH MEDIUM

STUDY TOUR was held at Maa Anandamayee Ashram on 10.11.2023..

14/11/2023

আজ শিশু দিবসে
সমস্ত শিশুদের জানাই
আন্তরিক স্নেহ ও ভালোবাসা
Happy Children’s Day!

11/11/2023
10/11/2023

Remembering Surendranath Banerjea:

Sir Surendranath Banerjea, popularly known as ‘Rashtraguru’, was one of the founders of modern India and a proponent of Indian autonomy within the British Commonwealth.

Surendranath was born on 10 November 1848 into a distinguished family and brought up in Manirampur, near Barrackpore. His father Durga Charan Banerjee, a doctor, deeply influence him in liberal and progressive thinking. He planned secretly to send Surendranath to England for higher studies which was not known to his mother until the day before. In England, Banerjea and two of his companions were received by WC Bonnerjee, one of the founder leaders of the Indian National Congress (INC) and its first president.

Banerjea passed the ICS in London in 1869 but was disqualified on the grounds of misrepresentation of age where 21 was the maximum age to complete the ICS exam. He won his appeal in court by arguing that his age was calculated following the Hindu custom - from the date of conception rather than from birth. Banerjea finally cleared the examination in 1871, returned to India, and got his first service posting in Sylhet as an assistant magistrate.

Banerjea was dismissed from the services within few years on a minor judicial error. He went to England in 1874 to appeal against his discharge but was unsuccessful on racial discrimination, as he felt. Dejected being disqualified from civil services, Surendranath returned to India in 1875 and stepped into teaching profession which he pursued for the next 37 years and became politically active. In 1882, he founded Rippon College in Calcutta, presently known as Surendranath College. He utilised the classrooms as a medium to ignite and awaken the ideas of nationalism in his students.

While in England, Banerjea studied the works of Edmund Burke, an anglo-Irish economist and philosopher, and other liberal philosophers. He was also influenced by Italian nationalist Giuseppe Mazzini. These works guided his nationalist foundations and protests against the British. He was known as ‘Indian Burke’ and also called ‘Surrender Not Banerjea’ for his tenacity.

Surendranath’s political career started in 1876 when he founded the ‘Indian National Association’ along with Anandamohan Bose to bring Hindus and Muslims together for political action. Three years later he purchased ‘The Bengalee’, a newspaper founded by Girish Chandra Ghosh in 1862, which he edited for 40 years from his nationalist viewpoint. He merged his organisation Indian National Association with the Indian National Congress (INC) after its formation in 1885 in Bombay. He also staged an arousing speech at the first conference of INC. Afterwards, he won INC’s presidentship twice in 1895 (Poona conference) and 1902 (Ahmedabad conference). He was the patron of rising Indian leaders like Gopal Krishna Gokhale and Sarojini Naidu.

Surendranath was one of the most conspicuous protestors of the ‘Partition of Bengal’ in 1905. He led the movement from the front by organising petitions, protests, and immeasurable public support. He was one of the key figures of the Swadeshi Movement. It finally compelled the British to nullify the Bengal province’s division in 1912. In London in 1909 Banerjea appealed to the British to modify the 1905 partition of Bengal, reinstitute habeas corpus, and grant India a constitution on the Canadian model. He firmly believed in representative government and progress by constitutional means. Although he was one of Congress moderates – favouring accommodation and dialogue with the British, he advocated continual agitation against the British.

His political career started getting influenced when the ‘extremists’ – proponents of revolution and political independence, gained popularity over the ‘moderates’ within the Congress. Surendranath was a critic of Gandhi’s Civil Disobedience but was an admirer of his supreme solicitude and earnest efforts to Hindu-Muslim unity. He welcomed the 1909 Morley-Minto reforms – limited increase in involvement of Indians in government, which a sizeable Indian population and leaders mocked. He also supported the 1918 Montagu-Chelmsford Reforms – gradually introducing self-governing institutions in India, and advocated self-governance. After leaving the Congress in 1906 he founded the Liberal Federation. In 1921 he became a minister of Bengal provincial government and formed Calcutta Municipal Corporation to serve the citizens. In 1924, his political career came to a practical end after the Swarajya party candidate Dr Bidhan Chandra Roy defeated him in the Bengal Legislative Assembly election. He retired to write his autobiography, A Nation in making (1925).

Surendranath Banerjea is remembered as a pioneer leader of Indian politics. He is one of the earliest leaders to champion the idea of liberalisation and nationalism. He died on August 6, 1925, at his home village in Barrackpore.

- Tribute by teacher Sumana Chowdhury

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 07/11/2023

ENGLISH MEDIUM

"Scoop me up"...... Made by Pre-nursery students

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 31/10/2023

ENGLISH MEDIUM

"Crafting is not about being perfect, it's about enjoying the process.”

KG2

28/10/2023

ভগিনী নিবেদিতা ও ভারতীয় মনীষী

দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে,সভ্যতা ও সংস্কৃতি গঠনের মূলে সমাজের উচ্চস্তরে যে সকল শিক্ষিত এবং প্রতিভাবান ব্যক্তি ছিলেন,তাঁদের উপর নিবেদিতা র প্রভাব বড় কম ছিল না। যিনি তাঁর সংস্পর্শে এসেছেন তিনিই ভারতবর্ষের প্রতি তাঁর ভালবাসা দেখে বিস্মিত, মুগ্ধ হয়েছেন এবং কর্মক্ষেত্রে তাঁর সহযোগিতা লাভ করে উপকৃত হয়েছেন।

এদেশে নিবেদিতার অন্তরঙ্গ বন্ধুগণের মধ্যে বৈজ্ঞানিক জগদীশ চন্দ্র বসু ও তার স্ত্রী অবলা বসুর নাম সর্বাগ্রে উল্লেখযোগ্য । ভারতীয়দের মধ্যে পরিচয়ের প্রথম অধ্যায়ে স্বভাবতঃই তিনি শিক্ষিত ব্রাহ্মসমাজের সংস্পর্শে আসেন । আচার্যের আবিষ্কারের কথা শুনে নিবেদিতা ও মিসেস বুল বিশেষ কৌতূহল নিয়ে তাঁর সাথে সাক্ষাৎ করেন, আলাপে ও ল্যাবরেটরী দেখে আকৃষ্ট হয়ে তাঁকে সাহায্য করার সংকল্প নেন। শ্রীমতি বসু জানতেন, নিবেদিতার এই প্রচেষ্টায় প্রবল অন্তরায়ের সম্ভাবনা কিন্তু কিছুদিন পর বোসপাড়া লেনে নিবেদিতার কাজ দেখে তিনি বুঝতে পারলেন নিবেদিতা অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারেন । পরিচয় পরে বন্ধুত্বে পরিণত হয়। আচার্যের বৈজ্ঞানিক প্রতিভা নিবেদিতা কে মুগ্ধ করেছিল। তাঁর মনে হয়েছিল পাশ্চাত্যের বৈজ্ঞানিকগণ যে জড়প্রকৃতির গবেষণা করতে করতে বিভিন্ন তত্ত্বের উদ্ঘাটন করেন, আচার্যের গবেষণা সে জাতীয় নয়,তাঁর গবেষণার উৎস অনুভূতি বা প্রত্যক্ষ দর্শন, যা ভারতীয় আধ্যাত্মিক তত্ত্বের মূল কথা- যার উপর ভারতীয় সমুদয় দর্শনশাস্ত্র প্রতিষ্ঠিত। লতাগুল্মের তিনি যে প্রাণের স্পন্দন আবিষ্কার করেছেন তার উৎস একটি সুস্পষ্ট বোধ বা বিশ্বাস থেকে। ভারতীয় বলে আচার্যের বৈজ্ঞানিক গবেষণায় প্রতিপদে ছিল অজস্র বাধা,সরকারের কাছ থেকে উৎসাহের পরিবর্তে ছিল একান্ত উদাসীনতা ,আর্থিক সাহায্য তো দূরের কথা।নিবেদিতা সবরকম সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলেন। বৈজ্ঞানিক বসুর সাধনা আবিষ্কার জয়যুক্ত হলে বিজ্ঞান জগতে যে বিরাট পরিবর্তন ঘটবে,তার ফলে ভারতবর্ষ বিশ্বের দরবারে গভীর মর্যাদা লাভ করবে,ভারতের অদ্বৈত-তত্ত্ব বিজ্ঞানের মধ্যে দিয়ে পুনরায় প্রমাণিত ও প্রতিষ্ঠিত হবে , বিশেষতঃ বিজ্ঞান চর্চা ব্যতীত বর্তমান ভারতের ব্যবহারিক জীবনের উন্নতি অসম্ভব - এই সব কারণেই জগদীশ চন্দ্র বসুর বিজ্ঞান- গবেষণায় নিবেদিতার ঐকান্তিক আগ্রহ ও সাহায্য । ১৯০১ সালে ইংল্যান্ডে থাকার সময় নিবেদিতা জগদীশ চন্দ্র বসুর গবেষণা কার্যে সাহায্য করতে আরম্ভ করেন। ১৯০২ থেকে ১৯০৭এর মধ্যে প্রকাশিত আচার্য বসুর তিনটি বিখ্যাত বই 'Living and Nonliving', 'Plant Response', Comparative Electro- physiology' পরবর্তী বই 'Irritability of Plants' এবং অন্যান্য বহু প্রবন্ধ যা পরে ধারাবাহিকভাবে রয়্যাল সোসাইটি পরিচালিত 'Philosophical Transactions' পত্রিকায় প্রকাশিত হয়- সমস্তই নিবেদিতার সম্পাদিত বললে যথার্থ বলা হয় না। নিবেদিতা জগদীশ চন্দ্র বসু কে' Man of Science' বলে অভিহিত করতেন । নিবেদিতা র সাথে বৈজ্ঞানিক বসুর পরিচয় ১৮৯৯ থেকে ১৯১১পর্যন্ত।বস্তুত নিবেদিতা র কাছে বৈজ্ঞানিক বসু জাতীয় সম্পদ রূপে গণ্য হতেন।নিবেদিতা র একান্ত আকাঙ্ক্ষা ছিল, ভারতীয় অর্থে ভারতীয় দের দ্বারা একটি বিজ্ঞান মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়, যেখানে ভারতীয় ছাত্রগণ বিজ্ঞান সাধনার সুযোগ লাভ করবে। বসুবিজ্ঞান মন্দিরের দ্বারদেশে প্রাচীর গাত্রে খোদিত দীপহাতে নারীমূর্তিটি নিবেদিতার পুণ্য স্মৃতির নিদর্শন । বৈজ্ঞানিক বসুর দীর্ঘকালব্যাপী, নিরবচ্ছিন্ন বিজ্ঞান- সাধনায় নিবেদিতার সাহচর্য ও সহায়তা স্বল্পকালের জন্য কিন্তু তার প্রভাব ছিল গভীর!

জোড়াসাঁকো ঠাকুর পরিবারের সাথে বিশেষতঃ রবীন্দ্রনাথ নাথ ঠাকুরের সাথে নিবেদিতা র ঘনিষ্ঠ সংযোগ ছিল। প্রথম দর্শনেই রবীন্দ্রনাথের আকৃতি ও ব্যক্তিত্বে নিবেদিতা আকৃষ্ট হয়েছিলেন । নিবেদিতা র সাথে প্রথম পরিচয় সম্বন্ধে রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন, ' ভগিনী নিবেদিতার সঙ্গে যখন আমার প্রথম দেখা হয়,তখন তিনি অল্পদিন মাত্র ভারতবর্ষে আসিয়াছেন। আমি ভাবিয়াছিলাম সাধারণতঃ ইংরেজ মিশনারী মহিলারা যেমন হইয়া থাকেন ইনিও সেই শ্রেণীর লোক ; কেবল ইঁহার ধর্মসম্প্রদায় স্বতন্ত্র ।' এই ধারণা থেকে তিনি নিবেদিতাকে তাঁর কন্যার ইংরেজী শিক্ষাভার গ্রহণে অনুরোধ করেন কিন্তু নিবেদিতা বলেন-'বাইরের শিক্ষা অন্তরের শিক্ষা হতে পারে না। জাতিগত নৈপুণ্য ও ব্যক্তিগত বিশেষ ক্ষমতারূপে মানুষের ভেতরে যে শিক্ষা আছে তাকে জাগিয়ে তোলাই আমি যথার্থ শিক্ষা মনে করি। ' রবীন্দ্রনাথের প্রস্তাবে তিনি রাজী হন নি, কারো অধীনে কাজ করার অভিপ্রায়ও তার ছিল না ।পরে নিবেদিতার শিক্ষাপ্রণালী দ্বারা আকৃষ্ট হয়ে রবীন্দ্রনাথ জোড়াসাঁকোর বাড়িতে তাঁকে একটি বিদ্যালয় স্থাপনের অনুরোধ জানালে তাতে নিবেদিতা বিশেষ আগ্রহ প্রকাশ করেন কিন্তু কিছু কারণে তা কার্যকর হয় না। পরে শান্তিনিকেতনে বিদ্যালয় ও আশ্রম স্থাপন করে রবীন্দ্রনাথ সেই আদর্শকে বাস্তবরূপ প্রদান করেন । ভারতীয় আদর্শে উভয়েরই একান্ত শ্রদ্ধা ও নিষ্ঠা ছিল। নিবেদিতার গভীর হিন্দু প্রীতি ও ইংরেজ -বিরাগ রবীন্দ্রনাথের ' গোরা ' উপন্যাস রচনায় অজ্ঞাতসারে সাহায্য করে থাকলে আশ্চর্য হবার কিছু নেই ।উপন্যাসের কাহিনীর সাথে বিন্দুমাত্র মিল না থাকলেও 'গোরা' -চরিত্রের জটিল দ্বন্দ্ব ও সংঘাতের মধ্যে নিবেদিতা- চরিত্রের চকিত দর্শন পাওয়া যায়। নিবেদিতা বাংলা ভাষা ভাল করে শিখেছিলেন; রবীন্দ্রনাথের কবিতার মর্মার্থ তিনি গ্রহণ করতে পারতেন এবং তাঁর বিখ্যাত ছোটগল্প 'কাবুলিওয়ালা ' ,দেনা-পাওনা' ও 'ছুটি 'র অনুবাদ করেছিলেন ।রবীন্দ্রনাথ তখন অধিকাংশ সময় শিলাইদহে থাকতেন ।নিবেদিতা কয়েকবার সেখানে গিয়েছেন।১৯০৪ এর ডিসেম্বর মাসে ডঃ বসুর সাথে প্রথম যান ,তখন পদ্মার তীরে অবস্থিত গ্রামটিতে পা রেখে তাঁর কী আনন্দ! পল্লীজীবনের প্রতি তাঁর ঔৎসুক্য,দরিদ্র নরনারীর জীবনের মধ্যে যে সরলতা ও পবিত্রতা- নিবেদিতা র কাছে তা ছিল আন্তরিক শ্রদ্ধার যোগ্য। পল্লীবাসী তাঁর সাথে ছোটখাটো সুখ-দুঃখের গল্পে নিকট আত্মীয়ের সহানুভূতি লাভ করত।পল্লীগ্রামের পরিবেশে খুব কাছ থেকে নিবেদিতাকে দেখে রবীন্দ্রনাথ যা বলেছেন তাতেই নিবেদিতার যথার্থ মহত্ত্ব প্রকাশিত -'ভগিনী নিবেদিতা কে দেখিয়াছি তিনি লোকসাধারণকে দেখিতেন,স্পর্শ করিতেন,শুধুমাত্র তাহাকে মনে মনে ভাবিতেন না। তিনি গন্ডগ্রামের কুটিরবাসিনী একজন সামান্য মুসলমান-রমণীকে যেরূপ অকৃত্রিম শ্রদ্ধার সহিত সম্ভাষণ করিয়াছেন দেখিয়াছি,সামান্য লোকের পক্ষে তাহা সম্ভবপর নহে- কারণ ক্ষুদ্র মানুষের মধ্যে বৃহৎ মানুষকে প্রত্যক্ষ করিবার সেই দৃষ্টি, সে অতি অসাধারণ, সেই দৃষ্টি তাহার পক্ষে অত্যন্ত সহজ ছিল বলিয়াই এতদিন ভারতবর্ষের অতি নিকটে বাস করিয়া তাঁহার শ্রদ্ধা ক্ষয় হয় নাই।'(পরিচয় ,পৃঃ ১০০)।

নিবেদিতা র সাথে রবীন্দ্রনাথের মতের মিল ছিল না। তাঁদের চলার পথ ছিল ভিন্ন ।রবীন্দ্রনাথ লিখেছেন-'তাহার পর মাঝে মাঝে নানা দিক দিয়া তাহার পরিচয় লাভের অবসর আমার ঘটিয়াছিল ।তাহার প্রবল শক্তি আমি অনুভব করিয়াছিলাম, কিন্তু সেই সঙ্গে ইহাও বুঝিয়াছিলাম তাহার পথ আমার চলিবার পথ নহে। তাঁহার সর্বতোমুখী প্রতিভা ছিল,সেই সঙ্গে তাঁহার আর একটি জিনিস ছিল,সেটি তাঁহার যোদ্ধৃত্ব।' এদেশের সর্বশ্রেষ্ঠ কবির অকপট শ্রদ্ধা যিনি লাভ করেছিলেন, তাঁর চরিত্রের যথাযথ অনুধাবন সহজ নয়। ঠাকুরবাড়ির অন্যান্য যাঁদের সাথে তাঁর অন্তরঙ্গতা ঘটেছিল তাঁদের মধ্যে সুরেন্দ্রনাথ ঠাকুর ও ভারতী-সম্পাদিকা সরলা ঘোষাল অন্যতম। সরলা ঘোষালের দেশপ্রীতি ছিল আন্তরিক, বাংলার জাতীয়তার পুনরুত্থানে তাঁর নাম উল্লেখযোগ্য ।

শিল্পাচার্য অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরও নিবেদিতার বিশেষ অনুরাগী ছিলেন। ১৯০২ খ্রিস্টাব্দে জাপানী মনীষী ওকাকুরা এদেশে এলে তাঁকে কেন্দ্র করে বাঙ্গালী শিক্ষিত সম্প্রদায়ের একটি উৎসাহী দল গড়ে উঠেছিল । ঐ দলের সাথে ঠাকুরবাড়ির অনেকের এবং নিবেদিতারও যোগাযোগ ছিল। আমেরিকান কনসলের বাড়িতে ওকাকুরার রিসেপশনে অবনীন্দ্রনাথের সাথে নিবেদিতার প্রথম সাক্ষাৎ । অবনীন্দ্রনাথ সেই নিবেদিতার সম্বন্ধে লিখছেন-'গলা থেকে পা পর্যন্ত নেমে গেছে সাদা ঘাগরা, গলায় ছোট্ট ছোট্ট রুদ্রাক্ষের এক ছড়া মালা; ঠিক যেন সাদা পাথরের গড়া তপস্বিনীর মূর্তি একটি। যেমন ওকাকুরা একদিকে,তেমনি নিবেদিতা আর একদিকে। মনে হল যেন দুই কেন্দ্র দুটি তারা এসে মিলেছে।' অবনীন্দ্রনাথ শিল্পী, নিবেদিতার সম্বন্ধে তাঁর উক্তি গুলো যেন কয়েকটি রেখা,যার মধ্যে নিবেদিতার স্বভাব ও সৌন্দর্যের মহিমা অপূর্ব রূপায়িত। অবনীন্দ্রনাথ বলেছেন,' ভারতবর্ষকে বিদেশী যাঁরা সত্যিই ভালবেসেছিলেন তার মধ্যে নিবেদিতার স্থান সবচেয়ে বড়।' শিল্পী নন্দলাল বসু,অসিত কুমার হালদার প্রমুখ বলেন শিল্পীরূপে তাঁদের সাফল্য অর্জনের মূলে ছিলেন নিবেদিতা । নিবেদিতা উদ্যোগী হয়ে নন্দলাল বসুকে অজন্তায় পাঠান ,নানাভাবে ভারতীয় শিল্প সম্বন্ধে জ্ঞানার্জনে সাহায্য করেন। ভূপেন্দ্রনাথ দত্ত, বারীন ঘোষ,তারক দাস প্রমুখ বিপ্লবী রা নিবেদিতা কাছ থেকে প্রেরণা লাভ করেছেন।

তদানীন্তন অন্যতম প্রসিদ্ধ দেশনেতা ও মনীষী বিপিনচন্দ্র পাল ঐ কথারই প্রতিধ্বনি করেছেন,- ' কুমারী মার্গারেট নোব্ ল ভগিনী নিবেদিতা নামে সমগ্র ভারতে পরিচিত ও ভারতের প্রিয়। নিবেদিতা নাম গ্রহণ তাঁর সার্থক । ভারতের সনাতন সভ্যতা ও সাধারণ ধারাতে তিনি নিঃশেষে আপনাকে মিশাইয়া দিয়াছেন। ' বিপিন চন্দ্র পাল তাঁর 'Soul of India' নামে বইতে নিবেদিতার প্রতি অন্তরের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন । তাঁর 'নিউ ইন্ডিয়া ' নামে প্রকাশিত সাপ্তাহিক পত্রিকায় নিবেদিতা ছিলেন অন্যতম প্রথম ও প্রধান লেখিকা ।ভারতবর্ষের বহু পত্রিকা বিশেষ করে জাতীয়তাবাদী পত্রিকাগুলি ছিল তাঁর ভাবাদর্শ- প্রচারের প্রধান অবলম্বন । প্রখ্যাত সাংবাদিক ,'প্রবাসী 'পত্রিকার সম্পাদক রামানন্দ চট্টোপাধ্যায় নিবেদিতার সম্বন্ধে বলছেন-, 'নিবেদিতার গভীর আধ্যাত্মিকতা, আশ্চর্য চারিত্রিক শক্তি , ভারতপ্রীতি, ভারতসেবায় উৎসর্গীকৃত জীবন, মনীষা , পান্ডিত্য, শিল্পজ্ঞান, নানা বিষয়ে আশ্চর্য লেখবার ক্ষমতা ও গভীর অন্তর্দৃষ্টি তার কাছে আন্তরিক ভাবে শ্রদ্ধার ছিল।' রামানন্দ চট্টোপাধ্যায়ের প্রতি নিবেদিতার শ্রদ্ধা ও অনুরাগের কারণ তাঁর স্বদেশ সেবার আদর্শ। যাঁরা যথার্থ দেশসেবী,স্বদেশের আদর্শে আস্থাবান এবং স্বদেশের কল্যাণকল্পে জীবন সমর্পণ করেছেন, তাঁরাই নিবেদিতার পরম শ্রদ্ধাভাজন ও ভালবাসার পাত্র ছিল।

কি সামাজিক, কি রাজনৈতিক জীবনে নিবেদিতার গভীর প্রভাব ছিল।নিবেদিতাকে চিনতেন না,বা তাঁর নামের সাথে পরিচিত ছিলেন না,এমন লোক সেযুগে বিরল।স্যার গুরুদাস বন্দ্যোপাধ্যায়,স্যার রাসবিহারী ঘোষ, ব্রজেন্দ্রনাথ শীল,প্রফুল্লচন্দ্র রায়, অশ্বিনী কুমার দত্ত, ডাঃ নীলরতন সরকার, আনন্দমোহন বসু, গিরিশচন্দ্র ঘোষ, মোতিলাল ঘোষ,ভূপেন্দ্রনাথ বসু, তারকনাথ পালিত,সুরেন্দ্র নাথ বন্দ্যোপাধ্যায়,সরোজিনী নাইডু, দীনেশচন্দ্র সেন,রমেশ চন্দ্র দত্ত প্রমুখ দেশের মনীষী গণ নিবেদিতা র গভীর পান্ডিত্য, চিন্তাশীলতা, কর্মতৎপরতা এবং সর্বোপরি ভারতবর্ষের প্রতি তাঁর অকপট ভালবাসা দেখে তাঁরা মুগ্ধ ও বিস্মিত হয়েছিলেন। দেশের যে কোন সমস্যায় নিবেদিতার পরামর্শ এবং সহযোগিতা তাঁদের কাছে ছিল অতিশয় আদরের। প্রখ্যাত সমাজতত্ত্ববিদ বিনয় সরকারের কথায় বলা যায় -'নিবেদিতা তুখোর মেয়ে, মগজটা ছিল ভারী ধারালো। পাশ্চাত্য-স্বাদেশিকতা ,ভাবনিষ্ঠা,রোমান্টিকতা ইত্যাদি রসে তাঁর চিন্তা-ভান্ডার ছিল ভরপুর। সেই চিত্ত আর ব্যক্তিত্ব তিনি ঢেলে দিয়েছিলেন রামকৃষ্ণ-বিবেকানন্দের মারফৎ ভারতীয় জনসাধারণ আর ভারতীয় সংস্কৃতির পায়ে।

যে যুগসন্ধিক্ষণে শ্রীরামকৃষ্ণদেব ও আধ্যাত্মিক শক্তিরূপিণী শ্রীসারদাদেবীর লীলাবিগ্রহধারণ এবং ভারতাত্মার পূর্ণ প্রতীক রূপে স্বামী বিবেকানন্দের আবির্ভাব, ভারতের পুর্নজাগরণের সেই গৌরবময় শুভ মুহূর্তে ভগিনী নিবেদিতার অভ্যুদয়। ভারতীয় ইতিহাসের একটি বিশিষ্ট অধ্যায়ে তাঁর অবদান অতুলনীয় । ভারত তথা সমগ্র বিশ্বের কল্যাণসাধনে শ্রীরামকৃষ্ণ দেব যে মহাশক্তির উদ্বোধন করেছিলেন তার অপূর্ব প্রকাশ দেখা দিয়েছিল ভগিনী নিবেদিতার জীবনে। শ্রীরামকৃষ্ণের সমগ্র শিক্ষাকে স্বামী বিবেকানন্দ দুটি সংক্ষিপ্ত শব্দে জগৎসমক্ষে স্থাপন করলেন-'ত্যাগ ও সেবা'। ভগিনী নিবেদিতার জীবনে সেই ত্যাগ ও সেবা বাস্তব রূপ গ্রহণ করল। শিক্ষায়,সেবায়,সাহিত্যে, বিজ্ঞানে,শিল্পে,রাজনীতিতে তাঁর অবদান ভারত-ইতিহাসে চিরস্মরণীয় । আজ তাঁর জন্মদিনের পুণ্যতিথিতে তাঁর চরণে আভূমি প্রণাম নিবেদন করি।

শ্রদ্ধা নিবেদনে বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা গায়ত্রী সেনগুপ্ত

24/10/2023

সকলকে জানাই
শুভ বিজয়ার
আন্তরিক প্রীতি ও শুভেচ্ছা,
শিশুদের জন্য রইল স্নেহাশীর্বাদ !

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 17/10/2023

ENGLISH MEDIUM

Project : Safety rules (KG2)

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 13/10/2023

প্রতিযোগিতায় কোনও বিশেষ স্থান অর্জন করা বড়ো কথা নয়,প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করাই বড়ো কথা।তবু যদি আমাদের বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা এগিয়ে থাকে সবার আগে তাহলে বিদ্যালয়ের প্রত্যেকের বুক গর্বে ভরে ওঠে। এই ছাত্র ছাত্রী রা বারংবার বিদ্যালয়ের মুখ আলোকিত করবে এই আশাই রাখি..

10/10/2023

2ND TERMINAL EXAMINATION of the session 2023-24 has been started on 09.10.23.

Picture of Dr. Sarvepalli Radhakrishnan drawn by Arohi Sharma (class 4)

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 03/10/2023

ENGLISH MEDIUM

Crafts work with paper done by Nursery students 😊

01/10/2023

Remembering Annie Besant

“India is a country in which every great religion finds a home.” - Annie Besant

On October 1st, we remember and honour the life and legacy of Annie Besant, a remarkable woman whose contributions to society, spirituality, social justice, and Indian nationalist movement left an indelible mark on history. Her journey was one of remarkable transformation, from an ordinary British woman to a prominent leader-eloquent speaker-writer, championing various causes with enduring impacts. Her tireless efforts in India solidified her place in the hearts of many Indians and she remains a revered figure in the nation's history.

Annie Besant was born on this day of 1847, in London, England, into a middle-class family. After her father’s death at her young age of 5 years, she was raised in a foster home. When 16, she returned back to her mother and brother, as a self-confident woman with a sense of duty to the society. Despite challenges, the determined Annie pursued her education and became a brilliant orator and writer on socialist subjects.

Her journey took a profound turn when she encountered theosophy, a belief system that emphasizes the pursuit of wisdom and spirituality. Under the influence of the theosophical movement, she underwent a profound transformation, embracing spirituality and dedicating her life to the study and promotion of theosophy. She became a prominent figure in the Theosophical Society, rising through its ranks to become its international president. Her eloquence and dedication helped spread theosophy worldwide. Today, this international society is headquartered in Chennai.

As a prominent member of the Theosophical Society, Besant visited India for the first time in 1893. At that time, she was its representative to the World Parliament of Religions in Chicago, where Swami Vivekananda delivered his groundbreaking speech on the same year (1893).

Starting as a proponent of Theosophical movement in India, Besant's commitment to social justice continued even after being criticized regarding women’s rights in India. She always fought for women’s rights favouring the traditional Hindu customs as she had much respect for the old Hindu ideas. She wrote for the newspaper National Reformer and lectured on social themes.

Besant was also involved in educational reforms in India. In 1898, she founded the Central Hindu College at Benaras, a boy’s school aiming to build new leaders in India. Afterwards she agreed to its incorporation into Benaras Hindu University which was founded by Pandit Madan Mohan Malavya in 1916.

Along with her theosophical and social activities, Besant continued to participate in political matters in India. She was a vocal supporter of Indian and Irish independence. In 1914, at the onset of World War I, Britain wanted support from India when Besant wrote ‘England’s need is India’s opportunity’ to call for self-rule. Echoing her thoughts of Irish movement, in 1916, she along with Bal Gangadhar Tilak set up ‘All India Home Rule League’, a political outfit, which organised movements to achieve self-rule from the British government. Her passionate speeches and writings inspired countless people to join the movement and galvanized Indian nationalist sentiment.

Home rule movement contributed to historic Montague Declaration in British parliament in 1917, advocating increasing association of Indians in every branch of administration and developing self-governing institutions in India. This laid the groundwork for political reforms in India instituted by Britain after World War I and new political leadership emerged in India. Annie Besant became the first woman President of the Indian National Congress to head the Calcutta session in 1917. Both Mahatma Gandhi and Jawaharlal Nehru acknowledged Besant’s influence with admiration.

Annie Besant's death on September 20, 1933, marked the end of a remarkable life dedicated to the pursuit of rich causes to the society and people at large. Her legacy lives on through the theosophical movement she helped shape and her contributions to the causes of Indian and Irish independence, workers' rights, and educational reforms. As we commemorate her birth anniversary, we remember Annie Besant as a woman of great conviction, vision, and courage, who left an enduring legacy that continues to inspire generations to come.

-Tribute by teacher Nirajita Mandal

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 23/09/2023

ENGLISH MEDIUM

Each child creates their own art.
Pre-nursery 😊

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 15/09/2023

ENGLISH MEDIUM

TEACHER'S DAY CELEBRATION

Photos from Vivekananda Vidyamandir's post 15/09/2023

শিক্ষক দিবসের আনন্দে শিক্ষিকা ও ছাত্র ছাত্রীরা ...

12/09/2023

শ্রদ্ধার্ঘ্য!
নিসর্গের অসামান্য রূপকার, প্রকৃতিগত প্রাণ, সদানন্দ, আত্মভোলা সাহিত্যিক বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়!

'পথের পাঁচালী'র অমর লেখক 'অপু'র স্রষ্টা বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় কাঁচরাপাড়ার কাছে ঘোষপাড়া -মুরাতিপুর গ্রামে মাতুলালয়ে ১৮৯৪ সালের ১২ই সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন।পৈতৃক নিবাস ছিল উত্তর চব্বিশ পরগনার বনগাঁর কাছে বারাকপুর গ্রামে। পিতা মহানন্দ বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন প্রখ্যাত সংস্কৃত পন্ডিত। পান্ডিত্য ও কথকতার জন্য তিনি শাস্ত্রী উপাধিতে ভূষিত হয়েছিলেন। মাতার নাম মৃণালিনী দেবী।
পিতার কাছেই বিভূতিভূষণের প্রথম পাঠ গ্রহণ শুরু হয়। এরপর গ্রামের পাঠশালায় শিক্ষালাভের পর বনগাঁর উচ্চ ইংরেজী বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে গিয়ে প্রথম দুদিন ভয়ে প্রবেশ করতে পারেননি।প্রকৃতপক্ষে তাঁর পিতা সংসার উদাসী ভবঘুরে মানুষ হওয়ার কারণে সংসারে অনটন লেগেই থাকত। যাইহোক, তৃতীয়দিনে তিনি প্রধান শিক্ষকের নজরে পড়েন। তাঁর হাতে সিঁদুর মাখানো টাকা দেখে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাঁর সাংসারিক অনটনের কথা জেনে প্রধান শিক্ষক চারুচন্দ্র মুখোপাধ্যায় বিভূতিভূষণকে অবৈতনিক শিক্ষার্থী হিসেবে ভর্তি করে নেন।
অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র ছিলেন বিভূতিভূষণ। ১৯১৪ সালে প্রথম বিভাগে তিনি এন্ট্রান্স পাশ করেন এবং ১৯১৬ সালে কলকাতার রিপন কলেজ থেকে আই.এ পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। পরবর্তীতে ডিস্টিংশন সহ বিএ পাশ করেন। এরপর এম এ এবং আইন পড়ার জন্য ভর্তি হলেও এই সময় তাঁর প্রথমা পত্নী গৌরীদেবীর মৃত্যু হয় এবং তাঁর লেখাপড়ার সমাপ্তি ঘটে। বস্তুত, এই সময় স্ত্রীর শোকে তিনি কাতর হয়ে সন্ন্যাসীর মত জীবনযাপন শুরু করেন। এরপর শিক্ষকতাকে জীবনে পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন। একে একে জাঙ্গীপাড়া স্কুল, সোনারপুর স্কুল, খেলাৎচন্দ্র মেমোরিয়াল স্কুল ও আমৃত্যু গোপালনগর স্কুলে শিক্ষকতা করেন। সোনারপুরে থাকাকালীন বিভূতিভূষণের সাহিত্যিক জীবনের উন্মেষ ঘটে। এইসময় তাঁর প্রথম গল্প "উপেক্ষিতা" 'প্রবাসী' পত্রিকায় প্রকাশিত হয়।
বঙ্কিমচন্দ্র , রবীন্দ্রনাথ, শরৎচন্দ্রের উপন্যাসের প্রবহমান ধারায় "পথের পাঁচালী" নিয়ে বিভূতিভূষণের উপন্যাসে আত্মপ্রকাশ এবং স্বীকৃতি। তাঁর সমগ্র অস্তিত্ব জুড়ে বিরাজিত 'অপু'। তাঁর বিস্ময়কর দৃষ্টি দিয়ে তিনি দেখেছেন মানুষ এবং প্রকৃতিকে। প্রকৃতিকে আশ্রয় করে শুনিয়েছেন অবহেলিত, নির্যাতিত মানুষের জীবনভাষ্য। রবীন্দ্র নাথ বলেছেন "বইখানা দাঁড়িয়ে আছে আপন সত্যের জোরে"। বিষয় নির্বাচনে, প্রশান্ত চিত্তের সহৃদতায় তাঁর সৃষ্টি যেমন সরস, তেমনই জীবনরসে পূর্ণ। প্রকৃতি সেখানে মানবজীবনের সঙ্গে একীভূত। মানুষের মতই সে রহস্যময়ী। তাঁর রচনায়, নিম্নবিত্ত বাঙালির জীবন চিত্র, সমকালীন আর্থ সামাজিক বাস্তবতাও সমভাবে উন্মোচিত হয়েছে বলেই বিভূতিভূষণের প্রতিটি রচনা এত জনপ্রিয়।
মানুষের শেষ গন্তব্য প্রকৃতি কারণ প্রকৃতিতেই তাঁর সকল অস্তিত্ব-- আরণ্যক উপন্যাসে এই সত্যই তিনি প্রতিষ্ঠা করেছেন। অন্নদা শংকর রায় বিভূতিভূষণ সম্বন্ধে বলেছেন, "এমন প্রকৃতি পাগল সাহিত্যিক বাংলা সাহিত্যে বিরল। নাগরিক সভ্যতা তাকে বশ করতে পারেনি।"
বিভূতিভূষণের রচনা সমগ্রের মধ্যে রয়েছে পনেরটি উপন্যাস, সাতটি কিশোর উপন্যাস, দুশোর অধিক ছোট গল্প। এছাড়াও লিখেছেন প্রবন্ধ , ভ্রমণ কাহিনী , ডায়েরি এবং ব্যাকরণ বই। ভাবলে অবাক লাগে এই অসাধারণ সাহিত্যিকের আয়ুষ্কাল মাত্র ছাপ্পান্ন বছর, লেখালেখির জীবন আঠাশ বছরের। 'ইছামতী' উপন্যাসের জন্য মরণোত্তর রবীন্দ্র পুরস্কার প্রাপ্ত এই মহান সাহিত্যিকের মৃত্যু হয় ১৯৫০এর ১লা নভেম্বর।
১৩০তম জন্মদিবসে এই মহতী প্রাণ কে নতমস্তকে আমি প্রণাম 🙏🏻জানাই।
--নিবেদনে , বিদ্যালয়ের দিবা বিভাগের শিক্ষিকাপ্রধান মিতা সেন।

Want your school to be the top-listed School/college in KOLKATA?

Click here to claim your Sponsored Listing.

Our Story

Welcome to the official page of Vivekananda Vidyamandir, Agarpara, a private Bengali and English Medium educational institution for Play-group, Pre-Primary and Primary level children.

Following the ideals of Ramkrishna-Saradamoni-Vivekananda, Vivekananda Vidyamandir was established in 1958 by late Sri Samarendra Maitra to impart holistic and balanced education to children so as to lay their foundations for higher education and journey of life. Supported by his wife, late Srimati Gita Maitra, the institution adopts to the contemporary educational systems for curricular and co-curricular learning.

The Bengali medium school operates in both morning and day sections and follows January-December academic calendar, guided by the West Bengal Board of Primary Education curriculum.

The English medium school operates in the morning following April-March academic calendar, guided by the ICSE curriculum.

Videos (show all)

Location

Telephone

Website

Address

Kolkata
700109
Other Elementary Schools in Kolkata (show all)
Starkids Starkids
530(P), Rajarhat Road, Bablatola
Kolkata, 700136

Starkids is a chain of Early Education Centres offering various programs and services for children.

OFDC Primary School OFDC Primary School
Kolkata, 700080

This is Free Primary School From class I to V Run by Ordnance Factory Dumdum, Ministry of Defense an

Sourav Memorial Educare Foundation Sourav Memorial Educare Foundation
39A/29, Prince Golam Mohammad Shah Road, Golf Green
Kolkata, 700095

Nursery, Pre-Primary, Primary Schooling & Teacher's Training Institute in Kolkata

Tantamount Public School Tantamount Public School
356 Kalikapur Road
Kolkata, 700099

We are one of the leading providers of educational services in India operating maximum number of se

BNUPSS_PaschimBanga BNUPSS_PaschimBanga
26 Bidhan Sarani
Kolkata, 700006

Bangiya NabaUnmesh Prathamik Sikshak Sangha (Bnupss) is an organisation for nationalist primary teach

P.K.Ghosh Memorial School P.K.Ghosh Memorial School
Kankhuli Ghoshpara , PO-Bidhangarh
Kolkata, 700066

Playgroup to KG (Kindergarten) is the initial stage of formal education designed for young children,

Junior Delhi School Ultadanga Junior Delhi School Ultadanga
47, Ultadanga Main Road, Near 15 No. Bus Stand
Kolkata, 700067

We, Junior DS Ultatanga are completely set to provide the best educational facilities to the child

SIP Abacus Sonarpur SIP Abacus Sonarpur
Upendra Bhawan, Sahebpara, Beside Sonarpur Recreation Club
Kolkata, 700150

Education Centre is pioneered in developing students and focus on fundamentals

Time Kids Birati Time Kids Birati
5 Mahajati, Bidhan Market, Birati
Kolkata, 700051

T.I.M.E Kids always is renowned for taking good care of the children in this society. With there good

CSC BAL Vidyalaya Kolkata CSC BAL Vidyalaya Kolkata
Tegharia Loknath Mandir, Jhawtala Road
Kolkata, 700157

CSC Bal Vidyalaya is a flagship initiative of CSC Academy. It is the fastest growing network of tech

Kidzee -Ultadanga Kidzee -Ultadanga
P-177, C. I. T Road, SCHEME-VII-M, GROUND FLOOR, NEAR ULTADANGA TRAM DEPOT
Kolkata, 700054

Kidzee, the expert in preschool education is the best choice for your child! No. one preschool in I

Adam's Day School Adam's Day School
F-40/A Meher Manzil Garden Reach Road
Kolkata, 700024