Online Tuition Center

Online Tuition Center

Our goal is to make the life of online tutors and students easier and safer, while helping them to r

Operating as usual

19/11/2022
Elmul Quran Landing Page 03/01/2022

Alhamdulillah! We offer online Quran lessons one on one the other with a live Quran tutors on the internet. Quran learning is simple now and you can study anything regarding Quran and Islam from the comfort of your own home. In this regard we have launched our online Quran tutoring system to help you master Quran by Noorani Qaida since it is our main obligation to share our knowledge about Islam throughout the world. The time is now Basic Qaida can be learned at home and at the timing. https://trial.elmulquran.org

Elmul Quran Landing Page We award a completion certificates after the successful evaluation of the completed course that is posted to students’ mail addresses.

09/03/2021

Look forward for this event

💥 আধুনিক ই-লার্নিং এর প্রবর্তক ডঃ বদরুল হুদা খান দেবেন আপনার প্রশ্নের উত্তর।💥
Learntime এর জুম আড্ডায় 🕙১১ তারিখ সকাল ১০ টায়🕙 উপস্থিত থাকবেন ই-লার্নিং এর প্রবর্তক 🎤ডঃ বদরুল হুদা খান।🎤 তার সাথে উক্ত আলোচনায় যোগ দিতে চলে আসুন ১১ তারিখ সকাল ১০ টায় নিচের লিংকেঃ👇👇👇👇
https://us02web.zoom.us/j/89239853699?pwd=WFNnektTWjkyMW5FVjE1ZEdTSW55QT09

Meeting ID: 892 3985 3699
Passcode: 2021

Online Tuition Center - Events 09/07/2020

"কোরআন শিক্ষায় অনলাইন মাধ্যম ও প্রবাসীদের ভাবনা" শীর্ষক অনলাইন ইভেন্ট টি 'ইলমুল কোরআন' এর আয়োজনে অনুষ্ঠিত হবে। আপনাকে এই ইভেন্ট এ অংশগ্রহন করার জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছি।

ইভেন্ট শুরু হবে কানাডা ও ইউএস সময় ১৭ই জুলাই শুক্রবার রাত ৯ঃ০০ টায় ও বাংলাদেশ সময় ১৮ই জুলাই শনিবার সকাল ৭ঃ০০ টায় ।

Online Tuition Center - Events 565 followers

27/05/2020

Must listen. May Allah bless this kid. Aameen

22/05/2020

১) জয়তুন তেল বা অলিভ অয়েল
২) সিরকা বা ভিনেগার
৩) কালোজিরা
৪) মধু
৫) রোজা রাখা
৬) কম খাওয়া
৭) রাতের খাবার এশার আগে খাওয়া
৮) তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে তাড়াতাড়ি জাগ্রত হওয়া ।

এইসব কিছুর ব্যপারে ১৪৫০ বছর আগে আমাদের রাসূল আমাদেরকে বলে গেছেন ।

রাসূলের বাণীকে সবাই সম্মান করলেও খুব কম মানুষই তা মান্য করে ।

# শিক্ষা -- আপনি বুঝেন আর না বুঝেন , মানেন আর নাই মানেন আল্লাহ ও তার রাসূলের প্রতিটি নির্দেশনা মানবজাতির জন্য কল্যাণকর ।

আল্লাহ্ সবাইকে বুঝার তাওফীক দান করুক ।
আমিন ।

20/05/2020

আমার বান্দাদেরকে বলে দিন যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে, তারা নামাজ কায়েম রাখুক এবং আমার দেয়া রিজিক থেকে গোপনে ও প্রকাশ্যে ব্যয় করুক ঐদিন আসার আগে, যেদিন কোন বেচা কেনা নেই এবং বন্ধুত্বও নেই। (সূরা ইবরাহিম : আয়াত ৩১)

14/05/2020

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন : রোজা হল ঢাল স্বরুপ। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যে রোজা পালন করবে সে যেন অশ্লীল আচরণ ও শোরগোল থেকে বিরত থাকে। যদি তার সাথে কেউ ঝগড়া বিবাদ কিংবা মারামারিতে লিপ্ত হতে চায়, তবে তাকে বলে দেবে আমি রোজাদার। (মুসলিম)

30/04/2020

রাসূল সা: হজরত আলী (রা:) কে নির্দেশ করেন, ‘হে আলী! নারীদের প্রতি প্রথম দৃষ্টির পর দ্বিতীয় দৃষ্টি নিক্ষপে করো না, কেননা প্রথম দৃষ্টি ক্ষমার যোগ্য, দ্বিতীয়টি নয়। হজরত জাবের রা: জিজ্ঞেস করলেন, হে আল্লাহর রাসূল সা:! হঠাৎ যদি দৃষ্টি পড়ে তা হলে কী করব? রাসূল সা: বললেন, তাৎণিক দৃষ্টি ফিরিয়ে নিয়ো’ (আবু দাউদ)

28/04/2020
28/04/2020

بِاسْمِكَ اللّٰهُمَّ أَمُوْتُ وَأَحْيَا

অথবা,

اللَّهُمَّ بِاسْـمِكَ أَمُوتُ وَأَحْيَا

হে আল্লাহ ! আপনার নাম নিয়েই আমি মরছি (ঘুমাচ্ছি) এবং আপনার নাম নিয়েই জীবিত (জাগ্রত) হবো।

বুখারী, (ফাতহুল বারীসহ) ১১/১১৩, নং ৬৩২৪; মুসলিম ৪/২০৮৩, নং ২৭১১।

ঘুমাতে যাওয়ার আগে অন্যান্য আমলসমূহ
-------------------------------------------

ঘুমাতে যাওয়ার আগে রাসূল (সা) বেশ কিছু আমল করতেন। এই সুন্নাহগুলো পালন করার মাধ্যমে আমরা আমাদের ঘুমকেও ইবাদতের সমতুল্য করে তুলতে পারি। ঘুমানোর আগের সুন্নাহগুলো প্রথমে পয়েন্ট আকারে তুলে ধরে পরে বিস্তারিত বর্ণনা করা হবে ইনশাআল্লাহ।

০। ব্যবহার্য থালা-বাসন, হাড়ি-পাতিল ঢেকে রাখা ও বাতি নিভিয়ে দেয়া
১। অযু করা
২। ঘুমের পূর্বে পড়ার জন্য বিশেষ কয়েকটি দুয়া আছে সেগুলো পড়া (যেমনঃ আল্লাহুম্মা বিসমিকা আমুতু ওয়া আহইয়া)
৩। সূরা কাফিরুন, সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক্ব ও সূরা নাস পড়া
৪। ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ, ৩৩ বার আলহামদুলিল্লাহ ও ৩৪ বার আল্লাহু আকবার পড়া
৫। আয়াতুল কুরসী পড়া
৬। সূরা বাক্বারার শেষ দুই আয়াত পড়া
৭। সূরা সাজদাহ ও সূরা মুলক পড়া
৮। ডান কাত হয়ে ঘুমানো

উপরের পয়েন্টগুলোর বিস্তারিত ও রেফারেন্স নিচে পর্যায়ক্রমে তুলে ধরা হলোঃ

০। ব্যবহার্য থালা-বাসন, হাড়ি-পাতিল ঢেকে রাখা ও বাতি নিভিয়ে দেয়া
---------------------------------
জাবির (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ

যখন রাত্রের আঁধার নেমে আসে, অথবা বলেছেনঃ সন্ধ্যা হয়, তখন তোমাদের শিশুদেরকে (বাইরে যাওয়া থেকে) আবদ্ধ রাখো। কেননা সে সময় শয়তান ছড়িয়ে পড়ে। তবে রাতের কিছু সময় অতিক্রান্ত হয়ে গেলে তাদেরকে ছেড়ে দাও এবং বিসমিল্লাহ বলে ঘরের দরজাসমূহ বন্ধ করো। কারণ শয়তান বদ্ধদ্বার খুলতে পারে না। আর বিসমিল্লাহ পড়ে তোমাদের মশকগুলোর মুখ বন্ধ করো এবং বিসমিল্লাহ বলে তোমাদের পাত্রগুলোও ঢেকে রাখো। (ঢাকার কিছু না পেলে) কোন কিছু আড়াআড়িভাবে হলেও পাত্রের উপর রেখে দাও। (আর ঘুমানোর সময়) বাতিগুলো নিভিয়ে দাও। (বুখারী ও মুসলিম)

১। অযু করা
-----------------------------------------------
হজরত বারা ইবনে আযিব হতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে বলেছেন,

‘যখন তুমি তোমার শয্যা গ্রহণের ইচ্ছা করবে, তখন সালাতের ন্যায় অজু করে ডান কাত হয়ে শয়ন করবে।’ (বুখারি ও মুসলিম)

যে ব্যক্তি পবিত্রাবস্থায় (অজু অবস্থায় ) ঘুমায় তার সাথে একজন ফেরেশতা নিয়োজিত থাকে। অতঃপর সে ব্যক্তি ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়ার সাথে সাথেই আল্লাহর সমীপে ফেরেশতাটি প্রার্থনায় বলে থাকে, হে আল্লাহ! তোমার অমুক বান্দাকে ক্ষমা করে দাও, কেননা সে পবিত্রাবস্থায় ঘুমিয়েছিল।’ (আল ইহসান ফি তাকরিব, সহীহ ইবনে হিব্বান)

২। ঘুমের পূর্বে পড়ার জন্য বিশেষ কয়েকটি দুয়া আছে সেগুলো পড়া
------------------------------------------------------------
ক.
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন ঘুমানোর ইচ্ছা করতেন তখন তাঁর ডান হাত তাঁর গালের নীচে রাখতেন, তারপর এ দো‘আটি বলতেন:

اللّٰهُمَّ قِنِيْ عَذَابَكَ يَوْمَ تَبْعَثُ عِبَادَكَ

হে আল্লাহ! আমাকে আপনার আযাব থেকে রক্ষা করুন, যেদিন আপনি আপনার বান্দাদেরকে পুনর্জীবিত করবেন।
আবূ দাউদ, শব্দ তাঁরই, ৪/৩১১, নং ৫০৪৫; তিরমিযী, নং ৩৩৯৮; আরও দেখুন, সহীহুত তিরমিযী, ৩/১৪৩; সহীহ আবী দাঊদ, ৩/২৪০

খ.
بِاسْمِكَ اللّٰهُمَّ أَمُوْتُ وَأَحْيَا

হে আল্লাহ ! আপনার নাম নিয়েই আমি মরছি (ঘুমাচ্ছি) এবং আপনার নাম নিয়েই জীবিত (জাগ্রত) হবো।

বুখারী, (ফাতহুল বারীসহ) ১১/১১৩, নং ৬৩২৪; মুসলিম ৪/২০৮৩, নং ২৭১১

গ.
اللّٰهُمَّ إِنَّكَ خَلَقْتَ نَفْسِيْ وَأَنْتَ تَوَفَّاهَا، لَكَ مَمَاتُهَا وَمَحْيَاهَا، إِنْ أَحْيَيْتَهَا فَاحْفَظْهَا، وَإِنْ أَمَتَّهَا فَاغْفِرْ لَهَا، اللّٰهُمَّ إِنِّيْ أَسْأَلُكَ العَافِيَةَ

হে আল্লাহ! নিশ্চয় আপনি আমার আত্মাকে সৃষ্টি করেছেন এবং আপনি তার মৃত্যু ঘটাবেন। তার মৃত্যু ও তার জীবন আপনার মালিকানায়। যদি তাকে বাঁচিয়ে রাখেন তাহলে আপনি তার হেফাযত করুন, আর যদি তার মৃত্যু ঘটান তবে তাকে মাফ করে দিন। হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে নিরাপত্তা চাই।
মুসলিম ৪/২০৮৩, নং ২৭১২; আহমাদ, তাঁর শব্দে ২/৭৯, নং ৫৫০২।

গ.
رَبَّ السَّمَوَاتِ السَّبْعِ وَرَبَّ الأَرْضِ، وَرَبَّ الْعَرْشِ الْعَظِيْمِ، رَبَّنَا وَرَبَّ كُلِّ شَيْءٍ، فَالِقَ الْحَبِّ وَالنَّوَى، وَمُنْزِلَ التَّوْرَاةِ وَالْإِنْجِيْلِ، وَالْفُرْقَانِ، أَعُوْذُ بِكَ مِنْ شَرِّ كُلِّ شَيْءٍ أَنْتَ آخِذٌ بِنَاصِيَتِهِ،

হে আল্লাহ! হে সপ্ত আকাশের রব্ব, যমিনের রব্ব, মহান ‘আরশের রব্ব, আমাদের রব্ব ও প্রত্যেক বস্তুর রব্ব, হে শস্য-বীজ ও আঁটি বিদীর্ণকারী, হে তাওরাত, ইনজীল ও কুরআন নাযিলকারী, আমি প্রত্যেক এমন বস্তুর অনিষ্ট থেকে আপনার নিকট আশ্রয় প্রার্থনা করি, যার (মাথার) অগ্রভাগ আপনি ধরে রেখেছেন (নিয়ন্ত্রণ করছেন)।

اللّٰهُمَّ أَنْتَ الأَوَّلُ فَلَيْسَ قَبْلَكَ شَيْءٌ، وَأَنْتَ الآخِرُ فَلَيْسَ بَعْدَكَ شَيْءٌ، وَأَنْتَ الظَّاهِرُ فَلَيْسَ فَوْقَكَ شَيْءٌ، وَأَنْتَ الْبَاطِنُ فَلَيْسَ دُوْنَكَ شَيْءٌ، اقْضِ عَنَّا الدَّيْنَ وَأَغْنِنَا مِنَ الْفَقْرِ

হে আল্লাহ! আপনিই প্রথম, আপনার পূর্বে কিছুই ছিল না; আপনি সর্বশেষ, আপনার পরে কোনো কিছু থাকবে না; আপনি সব কিছুর উপরে, আপনার উপরে কিছুই নেই; আপনি সর্বনিকটে, আপনার চেয়ে নিকটবর্তী কিছু নেই, আপনি আমাদের সমস্ত ঋণ পরিশোধ করে দিন এবং আমাদেরকে অভাবগ্রস্ততা থেকে অভাবমুক্ত করুন।

মুসলিম ৪/২০৮৪, নং ২৭১৩

ঘ.
اَلْحَمْدُ لِلّٰهِ الَّذِيْ أَطْعَمَنَا وَسَقَانَا، وَكَفَانَا، وَآوَانَا، فَكَمْ مِمَّنْ لاَ كَافِيَ لَهُ وَلاَ مُؤْوِيَ

সকল প্রশংসা আল্লাহ্‌র জন্য, যিনি আমাদেরকে আহার করিয়েছেন, পান করিয়েছেন, আমাদের প্রয়োজন পূর্ণ করেছেন এবং আমাদেরকে আশ্রয় দিয়েছেন। কেননা, এমন বহু লোক আছে যাদের প্রয়োজনপূর্ণকারী কেউ নেই এবং যাদের আশ্রয়দানকারীও কেউ নেই।
মুসলিম ৪/২০৮৫, নং ২৭১৫

ঙ.
اللّٰهُمَّ عَالِمَ الغَيْبِ وَالشَّهَادَةِ فَاطِرَ السَّمَوَاتِ وَالْأَرْضِ، رَبَّ كُلِّ شَيْءٍ وَّمَلِيْكَهُ، أَشْهَدُ أَنْ لاَ إِلَهَ إِلاَّ أَنْتَ، أَعُوْذُ بِكَ مِنْ شَرِّ نَفْسِي، وَمِنْ شَرِّ الشَّيْطانِ وَشِرْكِهِ، وَأَنْ أَقْتَرِفَ عَلَى نَفْسِيْ سُوءًا، أَوْ أَجُرَّهُ إِلَى مُسْلِمٍ

হে আল্লাহ! হে গায়েব ও উপস্থিতের জ্ঞানী, হে আসমানসমূহ ও যমীনের স্রষ্টা, হে সব কিছুর রব্ব ও মালিক! আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আপনি ছাড়া আর কোনো হক্ব ইলাহ নেই। আমি আপনার কাছে আশ্রয় চাই আমার আত্মার অনিষ্ট থেকে, শয়তানের অনিষ্টতা থেকে ও তার শির্ক বা তার ফাঁদ থেকে, আমার নিজের উপর কোনো অনিষ্ট করা, অথবা কোনো মুসলিমের দিকে তা টেনে নেওয়া থেকে।
আবূ দাউদ, ৪/৩১৭, নং ৫০৬৭; তিরমিযী, নং ৩৬২৯; আরও দেখুন, সহীহুত তিরমিযী, ৩/১৪২।

চ.
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন: ‘তোমাদের কোনো ব্যক্তি তার বিছানা ত্যাগ করলো, আবার ঘুমাতে ফিরে এলো সে যেন তার চাদর বা লুঙ্গির আঁচল দিয়ে তিনবার বিছানাটি ঝেড়ে নেয়। আর যেন সে বিসমিল্লাহ পড়ে, (আল্লাহর নাম নেয়); কেননা সে জানে না যে, তার চলে যাবার পর এতে কী পতিত হয়েছে।

তারপর সে যখন শোয়, তখন যেন এ দো‘আটি বলে,

بِاسْمِكَ رَبِّيْ وَضَعْتُ جَنْبِي، وَبِكَ أَرْفَعُهُ، فَإِنْ أَمْسَكْتَ نَفْسِيْ فارْحَمْهَا، وَإِنْ أَرْسَلْتَهَا فَاحْفَظْهَا، بِمَا تَحْفَظُ بِهِ عِبَادَكَ الصَّالِحِيْنَ

আমার রব! আপনার নামে আমি আমার পার্শ্বদেশ রেখেছি (শুয়েছি) এবং আপনারই নাম নিয়ে আমি তা উঠাবো। যদি আপনি (ঘুমন্ত অবস্থায়) আমার প্রাণ আটকে রাখেন, তবে আপনি তাকে দয়া করুন। আর যদি আপনি তা ফেরত পাঠিয়ে দেন, তাহলে আপনি তার হেফাযত করুন যেভাবে আপনি আপনার সৎকর্মশীল বান্দাগণকে হেফাযত করে থাকেন।

বুখারী, ফাতহুল বারীসহ ১১/১২৬, নং ৬৩২০; মুসলিম ৪/২০৮৪, নং ২৭১৪।

৩। সূরা কাফিরুন, সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক্ব ও সূরা নাস পড়া
------------------------------------------------------------------------------

ফরওয়াহ ইবনু নাওফাল (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ তিনি নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর কাছে এসে বললেন,

"হে আল্লাহ্‌র রাসূল! আমাকে কিছু শিখিয়ে দিন, যা আমি বিছানাগত হওয়াকালে বলতে পারি।"

তিনি বললেনঃ তুমি "কুল ইয়া আইয়্যুহাল কাফিরুন" সূরাটি তিলাওয়াত কর। কারণ তা শিরক হতে মুক্তির ঘোষণা।

সহীহঃ তা’লীকুর রাগীব (হাঃ ১/২০৯)

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাহাবীগণকে বললেন, “তোমরা কি এক রাতে এক তৃতীয়াংশ কুরআন পড়তে পারনা”? প্রস্তাবটি সাহাবাদের জন্য কঠিন মনে হল। তাই তাঁরা বলে উঠলেন, “হে আল্লাহর রসুল! এই কাজ আমাদের মধ্যে কে করতে পারবে?” (অর্থাৎ কেউ পারবে না।) তিনি বললেন, “ক্বুল হুওয়াল্লাহু আহাদ, আল্লাহুস স্বামাদ” (সুরা ইখলাস) কুরআনের এক তৃতীয়াংশের সমান”।. (অর্থাৎ এই সুরা পড়লে এক তৃতীয়াংশ কুরআন পড়ার সমান নেকী পাওয়া যাবে)।

সহীহুল বুখারী ৫০১৫, নাসায়ী ৯৯৫, আবু দাউদ ১৪৬১, আহমাদ ১০৬৬৯

আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ নবী করীম (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) প্রতি রাত্রে শয্যা গ্রহনের সময় তালুদ্বয় একত্রিত করে তাতে সূরা ইখলাস, ফালাক ও নাস পড়ে ফুঁ দিতেন। অতঃপর হাতদ্বয় দ্বারা শরীরের যতদূর পর্যন্ত বুলানো সম্ভব হতো, ততদূর পর্যন্ত বুলিয়ে নিতেন। স্বীয় মাথা, চেহারা এবং শরীরের সামনের দিক থেকে আরম্ভ করতেন। এইভাবে তিনি তিনবার করতেন।’’ (বুখারী ৫০১৭)

এটা জাদু-টোনা ও দুষ্ট জ্বীন-শয়তান থেকে ব্যক্তিকে নিরাপদ রাখবে ইনশাআল্লাহ।

৪। ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ, ৩৩ বার আলহামদুলিল্লাহ ও ৩৪ বার আল্লাহু আকবার পড়া
---------------------------------------------------------------

আলী (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ তিনি বলেন, ফাতিমা (রাঃ) রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর কাছে একটি চাকর চাইলে, তিনি বললেন, “আমি কি তোমাদের দু’জনকে এমন জিনিস বলে দেবো না, যা তোমাদের চাকরের চেয়ে উত্তম? তোমরা যখন বিছানায় শুতে যাবে, তখন ৩৪ বার আল্লাহু আকবর, ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ এবং ৩৩ বার আলহামদুলিল্লাহ পড়বে। এটা তোমাদের চাকরের চেয়েও উত্তম।” (বুখারী ৬৩১৮, মুসলিম ৬৯১৫)

৫। আয়াতুল কুরসী পড়া
----------------------------------
নবী (সা) বলেনঃ “যখন বিছানায় ঘুমুতে যাবে আয়াতুল কুরসী পাঠ করবে, তাহলে আল্লাহর পক্ষ থেকে তোমার উপর সব সময় একজন হেফাযতকারী নিযুক্ত থাকবে এবং ভোর পর্যন্ত শয়তান তোমার ধারে কাছেও আসতে পারবে না।”
সহীহ বুখারী, খন্ড ৬, অধ্যায় ৬১, হাদিস নং- ৫৩০

اللَّهُ لاَ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الْحَيُّ الْقَيُّومُ لاَ تَأْخُذُهُ سِنَةٌ وَلاَ نَوْمٌ لَهُ مَا فِي السَّمَاوَاتِ وَمَا فِي الأَرْضِ مَنْ ذَا الَّذِي يَشْفَعُ عِنْدَهُ إِلاَّ بِإِذْنِهِ يَعْلَمُ مَا بَيْنَ أَيْدِيهِمْ وَمَا خَلْفَهُمْ وَلاَ يُحِيطُونَ بِشَيْءٍ مِنْ عِلْمِهِ إِلاَّ بِمَا شَاءَ وَسِعَ كُرْسِيُّهُ السَّمَاواتِ وَالأَرْضَ وَلاَ يَئُودُهُ حِفْظُهُمَا وَهُوَ الْعَلِيُّ الْعَظِيمُ

অনুবাদঃ আল্লাহ্, তিনি ছাড়া কোনো সত্য ইলাহ্ নেই। তিনি চিরঞ্জীব, সর্বসত্তার ধারক। তাঁকে তন্দ্রাও স্পর্শ করতে পারে না, নিদ্রাও নয়। আসমানসমূহে যা রয়েছে ও যমীনে যা রয়েছে সবই তাঁর। কে সে, যে তাঁর অনুমতি ব্যতীত তাঁর কাছে সুপারিশ করবে? তাদের সামনে ও পিছনে যা কিছু আছে তা তিনি জানেন। আর যা তিনি ইচ্ছে করেন তা ছাড়া তাঁর জ্ঞানের কোনো কিছুকেই তারা পরিবেষ্টন করতে পারে না। তাঁর ‘কুরসী’ আসমানসমূহ ও যমীনকে পরিব্যাপ্ত করে আছে; আর এ দুটোর রক্ষণাবেক্ষণ তাঁর জন্য বোঝা হয় না। আর তিনি সুউচ্চ সুমহান।

৬। সূরা বাক্বারার শেষ দুই আয়াত পড়া
------------------------------------------------------

آمَنَ الرَّسُولُ بِمَا أُنزِلَ إِلَيْهِ مِن رَّبِّهِ وَالْمُؤْمِنُونَ ۚ كُلٌّ آمَنَ بِاللَّهِ وَمَلَائِكَتِهِ وَكُتُبِهِ وَرُسُلِهِ لَا نُفَرِّقُ بَيْنَ أَحَدٍ مِّن رُّسُلِهِ ۚ وَقَالُوا سَمِعْنَا وَأَطَعْنَا ۖ غُفْرَانَكَ رَبَّنَا وَإِلَيْكَ الْمَصِيرُ -

لَا يُكَلِّفُ اللَّهُ نَفْسًا إِلَّا وُسْعَهَا ۚ لَهَا مَا كَسَبَتْ وَعَلَيْهَا مَا اكْتَسَبَتْ ۗ رَبَّنَا لَا تُؤَاخِذْنَا إِن نَّسِينَا أَوْ أَخْطَأْنَا ۚ رَبَّنَا وَلَا تَحْمِلْ عَلَيْنَا إِصْرًا كَمَا حَمَلْتَهُ عَلَى الَّذِينَ مِن قَبْلِنَا ۚ رَبَّنَا وَلَا تُحَمِّلْنَا مَا لَا طَاقَةَ لَنَا بِهِ ۖ وَاعْفُ عَنَّا وَاغْفِرْ لَنَا وَارْحَمْنَا ۚ أَنتَ مَوْلَانَا فَانصُرْنَا عَلَى الْقَوْمِ الْكَافِرِينَ -

অনুবাদঃ
রাসূল তার প্রভুর পক্ষ থেকে যা তার কাছে নাযিল করা হয়েছে তার উপর ঈমান এনেছেন এবং মুমিনগণও। প্রত্যেকেই ঈমান এনেছে আল্লাহ্র উপর, তাঁর ফেরেশ্তাগণ, তাঁর কিতাবসমূহ এবং তাঁর রাসূলগণের উপর। আমরা তাঁর রাসূলগণের কারও মধ্যে তারতম্য করি না। আর তারা বলে, আমরা শুনেছি ও মেনে নিয়েছি। হে আমাদের রব! আপনার ক্ষমা প্রার্থনা করি এবং আপনার দিকেই প্রত্যাবর্তনস্থল।

আল্লাহ্ কারো উপর এমন কোন দায়িত্ব চাপিয়ে দেন না যা তার সাধ্যাতীত। সে ভাল যা উপার্জন করে তার প্রতিফল তারই, আর মন্দ যা কামাই করে তার প্রতিফল তার উপরই বর্তায়। ‘হে আমাদের রব! যদি আমরা বিস্মৃত হই অথবা ভুল করি তবে আপনি আমাদেরকে পাকড়াও করবেন না। হে আমাদের রব! আমাদের পূর্ববর্তীগণের উপর যেমন বোঝা চাপিয়ে দিয়েছিলেন আমাদের উপর তেমন বোঝা চাপিয়ে দিবেন না। হে আমাদের রব! আপনি আমাদেরকে এমন কিছু বহন করাবেন না যার সামর্থ আমাদের নেই। আর আপনি আমাদের পাপ মোচন করুন, আমাদেরকে ক্ষমা করুন, আমাদের প্রতি দয়া করুন, আপনিই আমাদের অভিভাবক। অতএব কাফির সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে আমাদেরকে সাহায্য করুন।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেনঃ “যে ব্যক্তি রাতের বেলা সুরা বাকারার শেষ দুই আয়াত পড়বে সেটা তার জন্য যথেষ্ঠ হবে”। সহীহ বুখারিঃ ৫০১০, সহীহ মুসলিমঃ ৮০৭।

বিখ্যাত হাদীস গ্রন্থ “রিয়াদুস সালেহীন” এর লেখক ও সহীহ মুসলিমের ভাষ্যকার, ইমাম আন-নববী (রহঃ) বলেন, “এর অর্থ কেউ বলেছেনঃ কিয়ামুল লাইল বা তাহাজ্জুদ নামাযের জন্য যথেষ্ঠ হবে। কেউ বলেছেনঃ শয়তানের ক্ষতি থেকে বাঁচার জন্য যথেষ্ঠ হবে। কেউ বলেছেনঃ বালা-মুসিবত থেকে নিরাপত্তা পাওয়া যাবে। তবে সবগুলো অর্থ সঠিক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

৭। সূরা সাজদাহ ও সূরা মুলক পড়া
--------------------------------------------------------
“রাসুলুল্লাহ (সাঃ) আলিফ লাম মীম তানজিলুল কিতাব (সুরা আস-সাজদা) ও তাবারাকাল্লাযী বিয়াদিহিল মুলকু (সুরা মুলক) তেলাওয়াত না করে কোন দিন ঘুমাতেন না”
সুনানে আত-তিরমিযী ২৮৯২, মুসনাদে আহমাদ ১৪২৯। শায়খ আলবানীর মতে হাদীসটি সহীহ, সহীহ তিরমিযী ৩/৬

৮। ডান কাত হয়ে ঘুমানো
-----------------------------------
রাসূলুল্লাহ্‌ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,

“যখন তুমি বিছানা গ্রহণ করবে, তখন নামাযের মত ওযু করবে, তারপর তোমার ডান পার্শ্বদেশে শুয়ে পড়বে। তারপর বল,

اللّٰهُمَّ أَسْلَمْتُ نَفْسِيْ إِلَيْكَ، وَفَوَّضْتُ أَمْرِيْ إِلَيْكَ، وَوَجَّهْتُ وَجْهِيْ إِلَيْكَ، وَأَلْجَأْتُ ظَهْرِيْ إِلَيْكَ، رَغْبَةً وَّرَهْبَةً إِلَيْكَ، لاَ مَلْجَأَ وَلاَ مَنْجَا مِنْكَ إِلاَّ إِلَيْكَ، آمَنْتُ بِكِتَابِكَ الَّذِيْ أَنْزَلْتَ، وَبِنَبِيِّكَ الَّذِيْ أَرْسَلْتَ

হে আল্লাহ! আমি নিজেকে আপনার কাছে সঁপে দিলাম। আমার যাবতীয় বিষয় আপনার কাছেই সোপর্দ করলাম, আমার চেহারা আপনার দিকেই ফিরালাম, আর আমার পৃষ্ঠদেশকে আপনার দিকেই ন্যস্ত করলাম; আপনার প্রতি অনুরাগী হয়ে এবং আপনার ভয়ে ভীত হয়ে। একমাত্র আপনার নিকট ছাড়া আপনার (পাকড়াও) থেকে বাঁচার কোনো আশ্রয়স্থল নেই এবং কোনো মুক্তির উপায় নেই। আমি ঈমান এনেছি আপনার নাযিলকৃত কিতাবের উপর এবং আপনার প্রেরিত নবীর উপর।”

রাসূল (সা) যাকে এ দুয়াটি যাকে শিক্ষা দিয়েন, তাকে বলেন, "যদি তুমি ঐ রাতে মারা যাও তবে ফিতরাত তথা দ্বীন ইসলামের উপর মারা গেলে"।
বুখারী, (ফাতহুল বারীসহ) ১১/১১৩, নং ৬৩১৩; মুসলিম ৪/২০৮১, নং ২৭১০

27/04/2020

হজরত ইবনে ওমর (রা.) বলেন, ‘আমাদের মধ্যে কেউ যদি ইশা ও ফজরের জামাতে উপস্থিত না হতো, তবে আমরা মনে মনে ভাবতাম, হয়তো সে মুনাফিক হয়ে গেছে। (বাযযার, তাবারানী, ইবনে খুযায়মা)

27/04/2020

হযরত আনাস ইবনে মালিক (রা.) বর্ণনা করেন, নবীজি (সা.) বলেন: ‘তোমরা সাহ্‌রি খাও, কেননা সাহ্‌রিতে বরকত রয়েছে।’ (বুখারি, সওম অধ্যায়, হাদিস: ১৮০১)।

হযরত আমর ইবনুল আস (রা.) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন: ‘আমাদের রোজা আর আহেল কিতাবদের (ইহুদী, খ্রিস্টান) রোজার মধ্যে পার্থক্য হলো সাহ্‌রি খাওয়া আর না খাওয়া।’
(মুসলিম, আলফিয়াতুল হাদিস, পৃষ্ঠা: ১৩১)।

27/04/2020

আজ সালাতুদ দুহা পড়েছেন তো?

এটি নফল সালাতের শ্রেষ্ঠত্বের মর্যাদায় দ্বিতীয়

ফরজ-ওয়াজিব নামাজের পর যেই নফল নামাজের ব্যাপারে বহু হাদীস বর্ণিত হয়েছে তা হচ্ছে সালাতুদ দুহা বা চাশতের নামাজ। এটি সূর্যোদয়ের পর থেকে যুহরের নামাজের ওয়াক্ত হবার আগ পর্যন্ত পড়া যায়। সর্বনিম্ন ২ রাকাত থেকে শুরু করে ১২ রাকাত পর্যন্ত পড়ার ব্যাপারে হাদীস পাওয়া যায়। সালাফগণের মতে এর বেশিও পড়া যাবে। এটি অন্যান্য নফল নামাজের মতই ২ রাকাত করে পড়া উত্তম। এই নামাজের জন্য কোনো নির্দিষ্ট সূরা-ক্বিরাত নাই। সূরা ফাতিহার সাথে যে কোনো সূরা দিয়েই এই নামাজ পড়া যাবে।

আমরা শবে বরাত, শবে মেরাজে সারা রাত জেগে নামাজ পড়াকে অনেক বেশি গুরুত্ব দেই। যদিও এর স্বপক্ষে খুব বেশি জোড়ালো দলীল নাই। শবে বরাতের ক্ষেত্রে কিছু হাদীসে আমলের ব্যাপারে পাওয়া যায়, কিন্তু শবে মেরাজের রাত্রে কোনো বিশেষ নামাজ বা পরদিন বিশেষ রোজার ব্যাপারে হাদীসে পাওয়া যায় না। অপরপক্ষে চাশতের নামাজের গুরুত্বের উপর অনেক সহীহ হাদীস রয়েছে। আমরা তা আমল করি না। নিজেদের মনগড়া বিদআতের উপর আমল করাটা আসলে সহজ। শয়তান এটাকে অনেক সুন্দর করে আমাদের সামনে উপস্থাপন করে। তাই আমরা বিদআত পালনে জান দিয়ে দিই। কিন্তু সহীহ হাদীসের উপর আমল করতে গড়িমসি করি। আল্লাহ আমাদেরকে সঠিক-সহজ ও সুন্দর ভাবে ইসলাম বুঝার তাওফিক দান করুন। শিরক-বিদআত থেকে আমাদেরকে রক্ষা করুন।

হযরত বুরাইদাহ্ (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি আল্লাহর রসূল (সাঃ) এর নিকট শুনেছি, তিনি বলেছেন, “মানবদেহে ৩৬০টি গ্রন্থি আছে। প্রত্যেক ব্যক্তির উপর ঐ প্রত্যেক গ্রন্থির তরফ থেকে দেয় সদকাহ্ রয়েছে।” সকলে বলল, ‘এত সদকাহ্ দিতে আর কে সক্ষম হবে, হে আল্লাহর রসূল?’ তিনি বললেন, “মসজিদ হতে কফ (ইত্যাদি নোংরা) দূর করা, পথ হতে কষ্টদায়ক বস্তু (কাঁটা-পাথর প্রভৃতি) দূর করা এক একটা সদকাহ্। যদি তাতে সক্ষম না হও তবে দুই রাকআত চাশতের নামায তোমার সে প্রয়োজন পূর্ণ করবে।” (আহমাদ, আবু দাঊদ)

হযরত উক্ববাহ্ বিন আমের জুহানী (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন আল্লাহর রসূল (সাঃ) বলেছেন, “আল্লাহ আযযা অজাল্লা বলেন, ‘হে আদম সন্তান! দিনের প্রথমাংশে তুমি আমার জন্য চার রাকআত নামায পড়তে অক্ষম হয়ো না, আমি তার প্রতিদানে তোমার দিনের শেষাংশের জন্য যথেষ্ট হব।” (আহমাদ, আবু য়্যালা, সহীহ তারগীব ৬৬৬ নং)

হযরত আবু দারদা (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আল্লাহর রসূল (সাঃ) বলেছেন, “যে ব্যক্তি চাশতের দু রাকআত নামায পড়বে সে উদাসীনদের তালিকাভুক্ত হবে না। যে ব্যক্তি চার রাকআত পড়বে সে আবেদগণের তালিকাভুক্ত হবে। যে ব্যক্তি ছয় রাকআত পড়বে তার জন্য ঐ দিনে (আল্লাহ তার অমঙ্গলের বিরুদ্ধে) যথেষ্ট হবেন। যে ব্যক্তি আট রাকআত পড়বে আল্লাহ তাকে একান্ত অনুগতদের তালিকাভুক্ত করবেন। যে ব্যক্তি বারো রাকআত পড়বে তার জন্য আল্লাহ জান্নাতে একটি গৃহ্ নির্মাণ করবেন। এমন কোন দিন বা রাত্রি নেই যাতে আল্লাহর কোন অনুগ্রহ নেই; তিনি তাঁর বান্দাদের মধ্যে যার প্রতি ইচ্ছা দানস্বরুপ উক্ত অনুগ্রহ দান করে থাকেন। আর তাঁর যিকরে প্রেরণা দান করা অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ অনুগ্রহ আল্লাহ তাঁর বান্দাদের মধ্যে কোন বান্দার প্রতিই করেননি।” (ত্বাবারানীর কাবীর, সহিহ তারগিব ৬৭১ নং)

26/04/2020

আর ঈমানদার পুরুষ ও ঈমানদার নারী একে অপরের সহায়ক। তারা ভাল কাজে আদেশ দেয় এবং মন্দ কাজে নিষেধ করে। নামায প্রতিষ্ঠা করে, যাকাত দেয় এবং আল্লাহ ও তাঁর রসূলের নির্দেশ অনুযায়ী জীবন যাপন করে। এদেরই উপর আল্লাহ তা’আলা দয়া করবেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ পরাক্রমশীল, সুকৌশলী। [সুরা আত তওবা : ৭১]

26/04/2020

কুরআনের উপকার লাভে যারা বঞ্চিত হয়, তাদের ব্যাপারে যাদুল মায়াদ গ্রন্থে ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম (রহ) বেশ কঠোরতা অবলম্বন করে বলেছেন "কুরআন যার উপকারে আসে না, আল্লাহ তাআলাও যেন তার উপকার না করেন! কুরআন যার জন্য যথেষ্ট হয় না, তার জন্য আর কিছুই যেন যথেষ্ট না হয়!" (ধূলিমলিন উপহার রমাদান, পৃঃ ১০১)

26/04/2020

ইসলামের প্রথম যুগের সাহাবী-তাবেয়ী-তাবে তাবেয়ীগণ রমাদান মাসে সারা বছরের তুলনায় অনেক বেশি কুরআন পড়তেন। এ মাসে কুরআন তিলাওয়াত ও দান-সাদকা করার প্রতি গুরুত্ব বুঝাতে আয-যুহরী (রহ) বলতেন "রমাদান মাস হলো তিলাওয়াতের মাস এবং গরীবদের খাওয়ানোর মাস। এই দুই জিনিস ছাড়া আর তৃতীয় কিছু নাই"। (ধূলিমলিন উপহার রমাদান, পৃঃ ১০১)

কুরআন পড়লে অন্তরে প্রশান্তি আসে। দুশ্চিন্তা কমে যায়। আল্লাহর উপর তাওয়াক্কুল বাড়ে। হতাশা, কষ্ট, মানসিক যন্ত্রণা থেকে মুক্তির জন্য কুরআন তিলাওয়াত করা, তিলাওয়াত শোনা ও কুরআনের তাফসীর সহ পড়া একটা অব্যর্থ উপায়। কিন্তু আমরা কি শুদ্ধ ভাবে কুরআন পড়তে পারি? বা কুরআন পড়লেও কি আমরা কুরআনের থেকে উপকৃত হয়ে থাকি?

26/04/2020

🕳মহামারীতে চারটি বিশেষ অনুভব!
🎤قال الحافظ إبن حجر - رحمه الله - : من فوائد الوباء والطواعين:" تقصير الأمل، وتحسين العمل، واليقظة من الغفلة، والتزود للرحلة"

✍ইবনে হাজার রহ. বলেন, প্লেগ ও মহামারির কিছু উপকার হলঃ ''১.জীবনের আশা কমে যায়, ২.আমল আদায়ে নিপুণতা বাড়ে ৩.গাফলতির ঘুম ভেঙে জাগে মানুষ এবং ৪. পাথেয় সংগ্রহ করে শেষ বিদায়ের জন্য''।

[বাজলুল মাউন ফি ফাজলিত তাউন, ইবনে হাজার: ৩৭৮ পৃ.]

★আমাদের মহামারীতে আমরা কি এই চার জায়গায় জাগ্রত হয়েছি?

25/04/2020

করোনার এই মহামারি কাটিয়ে আগামী রমাদান পাব কিনা আমরা কেউ জানি না। তাই এই সময়গুলোকে ফেসবুকে, ইউটিউবে বা মুভি দেখে নষ্ট না করি। ইসলামের জ্ঞান অর্জন করা হুজুরের উপর শুধু ফরজ না। আপনার আমার উপরেও ফরজ! এই রমাদানে চেষ্টা করি আগের চেয়ে ইসলামের বিষয়ে বেশি জ্ঞান অর্জন করার।

16/04/2020

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে বিশ্বব্যাপী যখন লকডাউনে, তখন আপনার সন্তানের পড়াশোনা চলুক অনলাইনে।

✌️আপনার সন্তানেরা ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমেই শুদ্ধ করে নামাজ ও কুরআন পড়া শিখুন🎧💻📚

☎️ Call/Whatsapp : +8801722936066

11/04/2020

✅ সচেতন থাকুন, বাসায় থাকুন, সুস্থ থাকুন ।

✌️ ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমেই শুদ্ধ করে নামাজ ও কুরআন পড়া শিখুন🎧💻📚

👍আপনার সন্তান কে অনলাইনে শুদ্ধ ভাবে নামাজ ও কুরআন পড়তে আমরা সাহায্য করছি।

30 ⏰min class per student.
20 ⏱min for Qaida/Quran and last 10 ⏰min for duas, Namaz,& diniyaat,(Islamic studies)
Easy to learn and Quran through Internet to all over the world,🌎

🌐 Details : www.OnlineTuitionCenter.com
☎️ Call / Whatsapp: +88-01722936066

Plz forward to your friends & relatives

07/04/2020

It's a great opportunity for every Muslim to learn Quran at his most convenient time
Quran Learning Online Benefits

• Free 3 days trial classes
• No registration /admission fee
• Teaching in both English and Bangla
• Highly trained, educated Quran tutors
• Read Quran while staying at your home 24/7
• Get individual lessons at lowest possible cost
• Choice of your own timing for class

Our Quran Tutor

All our Quran tutors have experience of teaching Quran to English speaking students. Our quran tutors have:

* Qualified Hafiz-e-Quran
* In depth knowledge of Tajweed and Tarteel
* Command in basic Islamic teaching
* Excellent command on Arabic, English & Bangla

Our teaching staff include well qualified educators and hafiz Quran. Our teachers know the learning style of every student.
They teach friendly and motivate students to read Quran and Islamic studies.

🌐 Details : www.OnlineTuitionCenter.com
☎️ Call / Whatsapp: +88-01722936066

Plz forward to your friends & relatives

06/04/2020

✅ সচেতন থাকুন, বাসায় থাকুন, সুস্থ থাকুন ।

👍 Offers online courses 🎧💻📚
Quran pak /qaida 📖classes with tajweed.Hadith

30 ⏰min class per student.
20 ⏱min for Qaida/Quran and last 10 ⏰min for duas, Namaz,& diniyaat,(Islamic studies)
Easy to learn and Quran through Internet to all over the world,🌎

🌐 Details : www.OnlineTuitionCenter.com
☎️ Call / Whatsapp: +88-01722936066

Plz forward to your friends & relatives

06/04/2020

Never Stop Learning.
Online One on One Tuitions

One week free as trial lessons via skype/zoom
WhatsApp: +8801722936066
Visit http://OnlineTuitionCenter.com

Plz forward to your friends & relatives

05/04/2020

Online One on One Tuitions

Offers online courses 🎧💻📚
Quran pak /qaida 📖classes with tajweed.Hadith

30 ⏰min class per student.
20 ⏱min for Qaida/Quran and last 10 ⏰min for duas, Namaz,& diniyaat,(Islamic studies)
Easy to learn and Quran through Internet to all over the world,🌎

One week free as trial lessons via skype/zoom
WhatsApp: +8801722936066
Visit http://OnlineTuitionCenter.com

Plz forward to your friends & relatives

04/04/2020

Anyone requiring home tuition services, please inbox.

Online classes can be provided, Flexible schedules. As per your requirements.

One week free as trial lessons via skype/zoom
WhatsApp: +8801722936066
Visit http://OnlineTuitionCenter.com

Want your school to be the top-listed School/college in Rajshahi?

Click here to claim your Sponsored Listing.

Videos (show all)

Dr. Mashiur's Zoom Meeting

Location

Category

Telephone

Address


Rajshahi
6100
Other Education in Rajshahi (show all)
Rajshahi Collegiate School Rajshahi Collegiate School
Shaheb Bazar
Rajshahi, 6000

First "modern" school in Bangladesh

IEEE RUET Student Branch IEEE RUET Student Branch
Rajshahi University Of Engineering & Technology
Rajshahi, 6204

IEEE RUET Student Branch is one of the dynamic student branches of IEEE BDS under IEEE Region 10. An expertizing committee along with some prolific volunteers who are craving for tech-excellency through the branch activities with great instinct.

English World English World
Rajshahi

This is an English learning platform.

Engineering and Survey Institute, Rajshahi Engineering and Survey Institute, Rajshahi
Rajshahi, SAPURA-6203

Welcome students. Keep touch with us.

Rakib's English Care Rakib's English Care
Binodpur Bazar
Rajshahi, 6206

Assalamu Alaikum Warahmatullah. Welcome to Rakib's English Care

Dharampur College Dharampur College
Rajshahi

Official page for online activities of Dharampur College

Sahin’s Chemistry Sahin’s Chemistry
Nafi Tower 2nd Floor(In Front Of City College)
Rajshahi

Imran Math Care -IMC Imran Math Care -IMC
Rajshahi, 6100

Welcome everyone to our page. This is a very important page for all classes. We hope you all find

As-Suffah Foundation As-Suffah Foundation
Terokhardia College Para
Rajshahi

দেশ, জাতি ও উম্মাহকে একটি স্বার্থক প্রজন্ম উপহার দেবার প্রত্যয়ে, আমাদের আদিগন্ত পথচলা।

Best One Varsity & Nursing Admission Coaching Best One Varsity & Nursing Admission Coaching
Rajshahi, 6200

বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং শুধুমাত্র মানবিক বিভাগ (খ+ঘ)। নার্সিং ভর্তি কোচিং ডিপ্লোমা ও মিডওয়াইফারি।

Dreamer IT School Dreamer IT School
Rajshahi
Rajshahi, 6340

Since in 2021 Biggest Freelancing Campaign Visit: https://dreameritschool.com Contact Us: 01305750206