Quran for Everyone - সকলের জন্য কুরআন

Quran for Everyone - সকলের জন্য কুরআন

👉🏻যে নিজেকে মুসলিম হিসাবে দাবী করবে ?

Operating as usual

18/08/2022

একজন মুসলমান হিসেবে আমরা যদি পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান আল-কুরআন এর দিকে তাকাই তাহলে দেখতে পাই আল্লাহ রাব্বুল আলামীন কোরআনে বলেছেন, “আমি কোরআনে এমন বস্তু নাজিল করেছি, যা মুমিনদের জন্য নিরাময় ও রহমত। ” (সুরা বনী ইসরাঈল, আয়াত ৮২)

তাহলে প্রশ্ন হলো আমরা কি রহমত-বরকত অন্বেষণ করছি! হয়ত প্রশ্ন জাগতে পারে যারা আল-কুরআন এর পথে চলছে, তারা কি অসুস্থ হবে না? আমরা সুস্থ থাকার জন্য কত কিছুই না করি! যারা কখনো অসুস্থ হননা তারা হয়ত অবাক হবেন কেননা রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (সা.) বলেছেন, ‘দোজখি লোক দেখার যাদের ইচ্ছা থাকে, তাদের বলো, যার কোনো দিন রোগ হয়নি তাকে যেন দেখে। ’ অর্থাৎ অসুস্থতাও আমাদের জন্য বিশাল এক নিয়ামত। এখন যদি বলি অসুস্থতা-সুস্থতা দু’টিই আল্লাহ তাআলার পক্ষ হতে তাহলে আমরা অযথা ওষুধ খাচ্ছি কেন? ওষুধের কি কোনো ক্ষমতা নেই! হযরত মুসা (আ.) এক বার পীড়িত হয়েছিলেন। ইসরাইল বংশীয় অভিজ্ঞ লোকেরা বলেছিল, ‘অমুক দ্রব্য এ রোগের ওষুধ, আপনি তাহা ব্যবহার করেন’ তিনি বলেছিলেন, ‘আমি ওষুধ সেবন করবো না, স্বয়ং আল্লাহ আমাকে আরোগ্য করবেন। ’ তার রোগ ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে লাগলো। তিনি কিছুতেই ওষুধ সেবনে সম্মত হলেন না, পীড়াও দূর হলোনা। ইতিমধ্যে ‘ওহী’ নাজেল হলো, ‘হে মুসা! আমি নিজের গৌরবের শপথ করে বলছি, ‘‘তুমি যতোদিন ওষুধ সেবন না করবে, আমি ততোদিন কিছুতেই তোমাকে আরোগ্য করবো না। অতঃপর তিনি ওষুধ সেবন করে স্বাস্থ্য পুনঃপ্রাপ্ত হয়েছিলেন। হাদিস শরিফে আছে, হযরত মুসা (আ.) আল্লাহর কাছে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, ‘হে আল্লাহ! রোগ কি কারণে আর আরোগ্যই বা কি কারণে ঘটে?’ উত্তর এসেছিল, ‘উভয়ই আমার আদেশে ঘটে’ । তিনি পুনরায় জিজ্ঞাসা করলেন, ‘চিকিৎসক তবে কোনো কাজের জন্য হয়েছে? উত্তর এলো, ‘কতগুলো লোক চিকিৎসা কার্যে, ওষুধের উপলক্ষে জীবিকা পাবে এবং আমার বান্দাদের প্রফুল্ল রাখবে এ উদ্দেশে তাদের সৃষ্টি করা হয়েছে। ’ অর্থাৎ মানুষের উচিত, যিনি ওষুধ সৃষ্টি করেছেন তার প্রতি যেন ভরসা করে, ওষুধের ওপর যেন কিছুমাত্র ভরসা না করে, কেননা বহুলোক ওষুধ সেবন করেও মারা যাচ্ছে। (সৌভাগ্যের পরশমনি, ইমাম গাযযালী (র.) )

আল্লাহ তা’আলা যে বান্দার মঙ্গলের জন্য রোগ দেন এই কথাটাই আমরা মানতে নারজ বরং একটু অসুস্থ হলেই আমরা দ্রুত চিকিৎসা শুরু করে দেই। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেছেন, ‘‘যে ব্যক্তি অসুস্থ অবস্থায় ধৈর্য ও সহিষ্ণুতার সঙ্গে একটি রাত অতিবাহিত করবে, আল্লাহ তা’আলা তাকে সদ্যজাত শিশুর ন্যায় নিষ্পাপ করে দেবেন। ”

সুতরাং রোগমুক্তির জন্য ব্যস্ত হয়ে যাওয়া ঠিক নয়। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে কোনো এক সাহাবি তার ভাইয়ের অসুখের বিবরণ দিয়ে তিনি তাকে মধু পান করানোর পরামর্শ দেন। দ্বিতীয় দিনও এসে আবার সাহাবি বললেন, অসুখ আগের মতো বহাল রয়েছে। তিনি আবারো একই পরামর্শ দিলেন। তৃতীয় দিনও যখন সংবাদ এলো যে, অসুখের কোনো পার্থক্য হয়নি, তখন তিনি বললেন, ‘‘আল্লাহর উক্তি নিঃসন্দেহে সত্য, ওষুধের কোনো দোষ নেই। রোগীর বিশেষ মেজাজের কারণে ওষুধ দ্রুত কাজ করেনি। ’’ এরপর রোগীকে আবার মধু পান করানো হয় এবং সে সুস্থ হয়ে ওঠে। (তফসীর মা’ আরেফুল কুরআন, পৃষ্ঠা-৭৪৭)

17/08/2022

মানুষকে সঠিক পথ দেখানোর জন্য আল্লাহ তায়ালা যুগে যুগে অসংখ্য নবী-রাসূল পাঠিয়েছেন। এসকল নবী-রাসূলদেরকে গাইডবুক হিসেবে সহীফা ও কিতাব দিয়েছেন। এসব কিতাব সমূহের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ কিতাব হচ্ছে আল-কোরআন। পূর্ববর্তী কিতাবসমূহের উপরে ঈমান আনা এবং আল-কোরআনকে মেনে চলা মুসলিমদের উপরে আল্লাহ তায়ালা ফরজ করেছেন।

আল-কোরআন এসেছে বিশ্ব মানবতাকে হিদায়াতের সঠিক পথের সন্ধান দেয়ার জন্য। আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, ‘রমযান মাস, যাতে কোরআন নাযিল করা হয়েছে মানুষের হিদায়াতস্বরূপ এবং হিদায়াতের সুস্পষ্ট নিদের্শনাবলী ও সত্য-মিথ্যার পার্থক্যকারীরূপে।’ (সূরা আল-বাকারা-১৮৫)

হিদায়াতের এই কিতাব আল-কোরআন শিক্ষা করা প্রত্যেক মুসলমানের উপরে ফরজ করা হয়েছে।

16/08/2022

💥 কোরআন নিয়ে চিন্তাভাবনা করা

আল্লাহ তাআলা কোরআনুল কারিমে যেসব বিষয় বর্ণনা করেছেন; তার সবেই মানুষের কল্যাণে নাজিল হয়েছে। আর এসব বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা ও গবেষণা করার দিকনির্দেশনা দিয়েছেন স্বয়ং আল্লাহ। জীবনঘনিষ্ঠ এসব বিষয় বোঝার জন্য কোরআনের অন্যতম হকও এটি। তাইতো মহান আল্লাহ বলেন-
> اَفَلَمۡ یَدَّبَّرُوا الۡقَوۡلَ اَمۡ جَآءَهُمۡ مَّا لَمۡ یَاۡتِ اٰبَآءَهُمُ الۡاَوَّلِیۡنَ
তবে কি তারা এই বাণী (কোরআন) অনুধাবন করে না? অথবা তাদের কাছে কি এমন কিছু এসেছে, যা তাদের পূর্বপুরুষদের কাছে আসেনি?’ (সুরা মমিনুন : আয়াত ৬৮)

15/08/2022

কোরআন আল্লাহর কিতাব। এটি মানুষের চূড়ান্ত জীবন বিধান। কোরআন অনুযায়ী জীবন পরিচালনা করা মুসলিম উম্মাহর জন্য আবশ্যক। জীবন পরিচালনায় কোরআন শোনা, তেলাওয়াত করা, মুখস্ত করা, চিন্তা-গবেষণা করা এবং কোরআনের পূর্ণাঙ্গ অনুসরণ ও অনুকরণ করা খুবই জরুরি। এগুলো মানুষের প্রতি কোরআনের হকও বটে। বিষয়গুলো কোরআন-সুন্নায় সুস্পষ্টভাবে ওঠে এসেছে-

15/08/2022

✔কোরআনের অন্যতম হক হলো নিয়মিত তা তেলাওয়াত করা।

আর এ তেলাওয়াত কীভাবে করতে হবে তা-ও সুস্পষ্টভাবে দিকনির্দেশনা এসেছে কোরআনে। আল্লাহ তাআলা বলেন-
اَوۡ زِدۡ عَلَیۡهِ وَ رَتِّلِ الۡقُرۡاٰنَ تَرۡتِیۡلًا
‘অথবা তার চেয়ে একটু বাড়াও। আর কুরআন আবৃত্তি কর ধীরে ধীরে স্পষ্ট ও সুন্দরভাবে।’ (সুরা মুযযাম্মিল : আয়াত ৪)

✔ কোরআন মুখস্ত করা
কোরআনবিহীন অন্তর প্রাণবিহীন অন্তরের মতো। তাই নিয়মিত কোরআন তেলাওয়াত করতে ন্যূনতম কিছু অংশ মুখস্ত করা জরুরি। এ কারণেই কোরআর মুখস্ত রাখার ব্যাপারে তাগিদ দিয়েছেন স্বয়ং বিশ্বনবি। হাদিসে এসেছে-
‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যার অন্তরে কোরআন নেই সে ধ্বংসপ্রাপ্ত ঘরের মতো।’ (তিরমিজি)

✔কোরআন নিয়ে চিন্তাভাবনা করা
আল্লাহ তাআলা কোরআনুল কারিমে যেসব বিষয় বর্ণনা করেছেন; তার সবেই মানুষের কল্যাণে নাজিল হয়েছে। আর এসব বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা ও গবেষণা করার দিকনির্দেশনা দিয়েছেন স্বয়ং আল্লাহ। জীবনঘনিষ্ঠ এসব বিষয় বোঝার জন্য কোরআনের অন্যতম হকও এটি। তাইতো মহান আল্লাহ বলেন-
> اَفَلَمۡ یَدَّبَّرُوا الۡقَوۡلَ اَمۡ جَآءَهُمۡ مَّا لَمۡ یَاۡتِ اٰبَآءَهُمُ الۡاَوَّلِیۡنَ
তবে কি তারা এই বাণী (কোরআন) অনুধাবন করে না? অথবা তাদের কাছে কি এমন কিছু এসেছে, যা তাদের পূর্বপুরুষদের কাছে আসেনি?’ (সুরা মমিনুন : আয়াত ৬৮)

> اَفَلَا یَتَدَبَّرُوۡنَ الۡقُرۡاٰنَ ؕ وَ لَوۡ کَانَ مِنۡ عِنۡدِ غَیۡرِ اللّٰهِ لَوَجَدُوۡا فِیۡهِ اخۡتِلَافًا کَثِیۡرًا
‘তারা কি কোরআন সম্বন্ধে চিন্তা-ভাবনা করে না? এ (কোরআন) যদি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো পক্ষ থেকে (অবতীর্ণ) হতো, তবে নিশ্চয়ই তারা তাতে অনেক পরস্পর-বিরোধী কথা পেত।’ (সুরা নিসা : আয়াত ৮২)

14/08/2022

যা বারবার পড়তে হয়, তাকেই কোরআন বলা হয়। ‘কোরআন’ আরবি শব্দ। কোরআন যেহেতু বারবার পঠিত হয়, তাই এর এরূপ নামকরণ। অথবা কোরআন অর্থ সংযুক্ত করা। যেহেতু এক আয়াত অন্য আয়াতের সঙ্গে এবং এক সূরা অন্য সূরার সঙ্গে সংযুক্ত করে কোরআন শরিফকে গ্রন্থে রূপদান করা হয়েছে, তাই এরূপ নামকরণও সার্থক হয়েছে।

ইসলামি শরিয়তের পরিভাষায়, নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নবুওয়তের সুদীর্ঘ ২৩ বছর জীবনকালে হজরত জিবরাইল আলাইহিস সালামের মাধ্যমে আল্লাহতায়ালা বিভিন্ন সময় প্রয়োজন অনুযায়ী যে বাণী অবতীর্ণ করেছেন, তার সংকলিত রূপই হলো- কোরআন। কোরআন সম্পূর্ণ অবিকৃত অবস্থায় বর্তমানের মানবজাতির নিকট মজুত আছে এবং কিয়ামত পর্যন্ত থাকবে- ইনশাআল্লাহ। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, ‘আমি কোরআন নাজিল করেছি এবং আমিই এর হেফাজতকারী।’

তথ্য-প্রযুক্তির চাকচিক্যময় চোখ ধাঁধানো এ যুগেও যে গ্রন্থটি সম্পর্কে বিশ্ববাসীর বিস্ময়ের অন্ত নেই তার নাম কোরআনে কারিম। কোরআন একাধারে বিশ্ব পরিচালনার সংবিধান, বিজ্ঞান গ্রন্থ, সমাজ বিজ্ঞান এবং একটি আধ্যাত্মিক গ্রন্থ। জ্ঞানের এমন কোনো শাখা আজও উদ্ভব হয়নি, যে সম্পর্কে কোরআনে উল্লেখ নেই। কিয়ামত পর্যন্ত মানব জাতির সব চাহিদা ও জিজ্ঞাসার জবাব এই কোরআন।

Want your school to be the top-listed School/college?

Website

Address


97/8 Patgudam, Bridge More
Mymensingh
2200