দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার

لَيْسَ الْعِلْمُ بِكَثْرَةِ الرِّوَايَةِ، إِنَّمَا الْعِلْمُ الْخَشْيَةُ

Operating as usual

05/10/2023

শিশুদের প্রতি নবীজী ﷺ-এর মমতা

নবীজী শিশুদের অনেক ভালবাসতেন, অনেক আদর করতেন। তিনি শিশুদের মাথায় হাত বুলিয়ে দিতেন, কোলে তুলে নিতেন। তাদের জন্য দুআ করতেন। শিশুরাও নবীজীকে অনেক আপন মনে করত। তাঁকে ঘোড়া বানিয়ে খেলা করত। কাঁধে চড়ত, পিঠে চড়ত।

নবীজী নিজে যেমন শিশুদের আদর করতেন, তার উম্মতকেও বলে গেছেন- শিশুদের আদর করতে। হযরত আবু হুরাইরা রদ্বিয়াল্লাহু আনহু বলেন, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর নাতি হাসানকে চুমু খেলেন। সেখানে আকরা ইবনে হাবিস নামে এক সাহাবী বসা ছিলেন। হাসানকে চুমু খাওয়া দেখে তিনি বললেন, আমার দশটি সন্তান রয়েছে। আমি তাদের কাউকে চুমু খাইনি। নবীজী তার দিকে তাকিয়ে বললেন, যে দয়া করে না, তার প্রতিও দয়া করা হবে না। -সহীহ বুখারী, হাদীস ৫৬৫১; সহীহ মুসলিম, হাদীস ৬৫; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ৫২১৯

আরেক হাদীসে আম্মাজান আয়েশা রদ্বিয়াল্লাহু আনহা বলেন, এক গ্রাম্যব্যক্তি নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর কাছে আসল। নবীজী তাকে বললেন, তোমরা কি তোমাদের শিশুদেরকে চুমু খাও? সে বলল, আমরা তাদেরকে চুমু দেই না। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমাদের অন্তরে যদি দয়া-মায়া না থাকে তাহলে আমার কী করার আছে? -সহীহ বুখারী, হাদীস ৫৬৫২; সহীহ মুসলিম, হাদীস ৬৪

অন্য এক হাদীসে আবু হুরাইরা রদ্বিয়াল্লাহু আনহু বলেন, একবার এক ব্যক্তি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট উপস্থিত হল। লোকটির সাথে একটি শিশুও ছিল। নবীজী লোকটিকে বললেন, তুমি কি এই শিশুর প্রতি দয়া কর? সে বলল, হাঁ। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তাহলে এই শিশুর প্রতি তুমি যতটুকু দয়া করবে তারচে বেশি আল্লাহ তোমার প্রতি দয়া করবেন। তিনি দয়ালুর মধ্যে সবচে বড় দয়ালু। -আল আদাবুল মুফরাদ, হাদীস ৩৭৭

তাহলে এ হাদীসগুলো থেকে আমরা জানতে পারলাম, যারা শিশুদের প্রতি দয়া করবে আল্লাহ তাআলা তাদের প্রতি আরো বেশি দয়া করবেন। আর যারা শিশুদের প্রতি দয়া করবে না আল্লাহও তাদের প্রতি দয়া করবেন না। সুতরাং আমার চেয়ে যে ছোট তার সাথে আমাকে দয়া করতে হবে, তাহলে আল্লাহ আমার প্রতি দয়া করবেন। আমার ছোট ভাই-বোনদের প্রতি যদি আমি দয়া করি; তাদেরকে আদর করি, তাদেরকে না মারি, তাহলে আল্লাহ আমার প্রতি দয়া করবেন।

আজ থেকেই তাহলে প্রতিজ্ঞা করি, ছোট ভাই-বোনদের বা অন্য শিশুদের প্রতি দয়া করব, কখনো তাদের গায়ে হাত তুলবো না।

ছোটদের প্রতি দয়া না করলে নবীজী অনেক রাগ করতেন। হযরত উবাদাহ ইবনে ছামিত রদ্বিয়াল্লাহু আনহু বলেন, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ঐ ব্যক্তি আমার উম্মতের অন্তর্ভুক্ত নয় যে আমাদের বড়কে সম্মান করে না এবং আমাদের ছোটকে দয়া করে না এবং আমাদের আলিমের হক রক্ষা করে না। -মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ২২৬৫৪

ছোটদের প্রতি দয়া না করলে, নবীজী বলেছেন, সে আমার উম্মতের অন্তর্ভুক্ত নয়। কত বড় কথা!

আমাদের ভাই-বোন, আত্মীয়-স্বজন ছাড়াও কিন্তু আরো ছোট মানুষ আমাদের বাসায় থাকে। যেমন ছোট কাজের মেয়ে বা কাজের মানুষের ছোট সন্তান। আমরা কিন্তু অনেক সময় তাদের সাথে খারাপ আচরণ করি, তাদের গায়ে হাত তুলি। অথচ নবীজী বলেছেন, যে ছোটর প্রতি দয়া করে না সে আমার উম্মতের অন্তর্ভুক্ত নয়। সুতরাং আর কখনো এমনটি করব না।

আনাস রদ্বিয়াল্লাহু আনহু নবীজীর খেদমত করতেন, কিন্তু নবীজী কখনো তার গায়ে হাত তোলেননি, এমনকি কখনো এমন কথাও বলেননি যে, আনাস! তুমি এই কাজটি কেন করেছ, আর ঐ কাজটি কেন করনি। অথচ আমরা পানি আনতে একটু দেরি হলেই ছোট্ট কাজের মানুষের সাথে কত খারাপ ব্যবহার করি।

উপরের হাদীসে কি আরেকটি বিষয় খেয়াল করেছেন? নবীজী বলেছেন, যে বড়র সম্মান করে না, আলেমের হক আদায় করে না, সেও আমার উম্মতের অন্তর্ভুক্ত নয়। তাহলে বড়দের সাথেও আমরা কখনো খারাপ আচরণ করবো না। বড়দের কথা শুনবো, আলেমের সম্মান করব।

ছোট বড়কে সালাম দিবে, এটাই নিয়ম। কিন্তু এর অর্থ এই নয় যে, বড়রা ছোটদের সালাম দিবে না। নবীজী সবার বড়, কিন্তু তিনি নিজে ছোটদের সালাম দিতেন। আমরা সব সময় চেষ্টা করব বড়কে আগে আগে সালাম দিতে। সাথে সাথে আমি আমার ছোটকেও সালাম দিব। আমি যদি ছোটকে সালাম না দিই তাহলে সে কার কাছ থেকে সালাম দেওয়া শিখবে? আনাস রদ্বিয়াল্লাহু আনহু বলেছেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন আনসারদের সাথে সাক্ষাৎ করতে যেতেন তখন তাদের শিশুদের সালাম দিতেন। মাথায় হাত বুলিয়ে দিতেন এবং তাদের জন্য দুআ করতেন। -সুনানে কুবরা নাসাঈ, হাদীস ৮২৯১; সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস ৪৫১

আরেক হাদীসে হযরত ইউসুফ ইবনে আব্দুল্লাহ রদ্বিয়াল্লাহু আনহু বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম (শৈশবে) আমার নাম ইউসুফ রেখেছেন। তিনি আমাকে তাঁর কোলে বসিয়েছেন এবং আমার মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়েছেন। -আল আদাবুল মুফরাদ, হাদীস ৩৬৭

নামাযের মত মহান ইবাদতেও রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শিশুদের প্রতি খেয়াল রাখতেন। তিনি বলেন, আমি কখনো নামায দীর্ঘ করার ইচ্ছা করি। কিন্তু কোনো শিশুর কান্নার আওয়াজ শুনে নামায সংক্ষিপ্ত করে ফেলি। কেননা বাচ্চার কান্নার কারণে মায়ের কষ্ট হয়।
-সহীহ বুখারী, হাদীস ৬৭৭; সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস ১৬১০; সহীহ ইবনে খুযায়মা ৯৮৯’ সুনানে ইবনে মাজাহ ৯৮৯; সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস ২১৩৯

আবার এমন ঘটনাও ঘটেছে, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সিজদায় গিয়েছেন আর হাসান বা হুসাইন রদ্বিয়াল্লাহু আনহু তাঁর পিঠে চড়ে বসেছেন। ফলে তিনি দীর্ঘ সময় সিজদায় থাকতেন। (অপেক্ষা করতেন কখন তারা পিঠ থেকে নামবে)। -সুনানে নাসাঈ, হাদীস ১১৪১; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ২৭৬৮৮; মুসতাদরাকে হাকেম, হাদীস ৪৭৭৫

হাদীসের কিতাবে আরো অনেক ঘটনা আছে। মনে রাখতে হবে আমার যারা বড় তাদের সম্মান করব। আর আমার থেকে যারা ছোট তাদের সাথে ভালো ব্যবহার করব, আদর করব। আর নবীজী যেমন আমাদের ভালোবাসতেন আমরাও নবীজীকে ভালোবাসবো, নবীজীর সুন্নতকে ভালোবাসবো।

~রাইয়ান বিন লুৎফর রহমান

[সূত্র : মাসিক আল কাউসার
বর্ষ : ১১,সংখ্যা : ০৯
যিলহজ্ব ১৪৩৬ || অক্টোবর ২০১৫]

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 28/09/2023

আলহামদুলিল্লাহ! আগামী ১লা ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ইং রোজ বৃহস্পতিবার, দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার এর বার্ষিক ইসলামি মহা সম্মেলন।

প্রধান অতিথি: আওলাদে রাসুল সাঃ
আল্লামা সায়্যিদ হাসান আসজাদ মাদানি দাঃবাঃ ভারত।

বিঃদ্রঃ আশ পাশের মাহফিল কমিটির দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

21/09/2023

আল-করিম ছাত্র সংসদ কর্তৃক আয়োজিত সাপ্তাহিক প্রশিক্ষণ সভায় ইসলামি সংগিত পরিবেশন করছে সানা: আম্মাহ ২য় বর্ষের ছাত্র মোহা: ওলিউল্লাহ।

🔴দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা।

21/09/2023

আল-করিম ছাত্র সংসদ কর্তৃক আয়োজিত সাপ্তাহিক প্রশিক্ষণ সভায় ইসলামি সংগিত পরিবেশন করছে সানা: আম্মাহ ১ম বর্ষের ছাত্র মোহা: হুসাইন আহমদ।

🔴দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা।

20/09/2023

দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসার নূরানী বিভাগ।

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 13/09/2023

দক্ষিণভাগ ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান যুক্তরাজ্য প্রবাসী জনাব নজমুল ইসলাম সাহেব'র "দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা" য়' আগমণ,,,,,,,,,,,,,,

অদ্য ১৩/০৯/২৩ ইং রোজ বুধবার যুক্তরাজ্য প্রবাসী জনাব নজমুল ইসলাম সাহেব আমাদের মাদরাসায় আগমণ করেন। মাদরাসার নির্বাহী মুহতামিম মাওলানা মাহতাবউদ্দিন সাহেব যুক্তরাজ্যে সফররত অবস্হায় মাদরাসার শুভাকাঙ্ক্ষী যারা উনাকে অর্থ, সময়, ও শ্রম দিয়ে সর্বাত্বক সহযোগিতা করেছেন জনাব নজমুল ইসলাম সাহেব হলেন তাদের মধ্যে অন্যতম একজন।

উনার আগমণ উপলক্ষে বাদ জোহর এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এতে এলকার মুরব্বিয়ান, মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সদস্য, মাদরাসার শিক্ষার্থীবৃন্দ ও শিক্ষক গণ উপস্থিত ছিলেন।

তিনি মাদরাসার নির্মাণাধীন ভবন পরিদর্শন করেন এবং কাজের অগ্রগতি দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

পরিশেষে উনার আগমণ উপলক্ষে মাদরাসার পক্ষ থেকে উনাকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। এবং তার মরহুম পিতার আত্মার মাগফিরাত কামনা ও মাতার হায়াত বৃদ্ধির জন্য মোনাজাত করা হয়।

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 13/09/2023

আলহামদুলিল্লাহ, গাংকুল নিবাসী, লন্ডন প্রবাসী, জনাব সাহান চৌধুরীর পক্ষ থেকে উনার মরহুম পিতা জনাব সিরাজ উদ্দিন চৌধুরী ও মরহুমা মাতা জনাবা জাহানারা চৌধুরীর রুহের মাগফেরাত কামনায় সদকায়ে জারিয়া স্বরুপ আমাদের মাদ্রাসার কুতুবখানায় প্রায় ২৫০০০ টাকা সমমূল্যের কিতাব দান করেন।

আজ ১৩/৯/২৩ ইং রোজ বুধবার বাদ জোহর উনার পরিবারের পক্ষ থেকে মাদরাসার নির্বাহী মুহতামিম মাওলানা মাহতাবউদ্দিন সাহেবের নিকট কিতাব হস্তান্তর করা হয়। এসময় মাদ্রাসার সকল শিক্ষক ও ছাত্র /ছাত্রীদের নিয়ে তাদের মরহুম পিতা মাতার রুহের মাগফেরাত কামনা করে মুনাজাত করা হয়।

আল্লাহ তায়ালা তাদের এই দানকে কবুল করুন, এবং তাদের ইহ ও পরকালীন কল্যাণ দান করুন। আমিন।

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 30/08/2023

আলহামদুলিল্লাহ! বড়লেখার ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার, এর ১ম সাময়িক পরিক্ষার ৩য় দিন চলছে। শিশু শ্রেণী থেকে ছানা: আম্মাহ ২য় বর্ষ পর্যন্ত মোট দুটি হলে পরিক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
আল্লাহ তায়ালা ছাত্র-ছাত্রীদের কামিয়াব করুন। আমীন

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 28/08/2023

আলহামদুলিল্লাহ
আজ থেকে শুরু হলো দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদরাসার প্রথম সাময়িক পরীক্ষা, ২ টি হলে মনোরম পরিবেশে ছাত্র /ছাত্রীরা পরীক্ষা দিচ্ছে, আল্লাহ সবাইকে আশাতীত কামিয়াবি দান করুন, আমীন।

13/08/2023

ইমাম হাফিজ ইবনুল কাইয়িম রাহিমাহুল্লাহ বলেন-

তিনটা জিনিস শরীরকে অসুস্থ করে।

(১) কথা বেশি বলা।
(২) অধিক নিদ্রা ও বিশ্রাম।
(৩) অতিরিক্ত পানাহার করা।

চারটা জিনিস শরীরকে ধ্বংস করে

(১) দুঃশ্চিন্তা ও পেরেশানি,
(২) দুঃখ ও হতাশা,
(৩) ক্ষুধা
(৪) অনর্থক অধিক রাত্রি পর্যন্ত জেগে থাকা।

চারটা জিনিস চেহারাকে মলিন করে এবং আনন্দ ও সম্মান কেড়ে নেয়

(১) মিথ্যা,
(২) ঔদ্ধত্য ও অহংকার,
(৩) ইলমি বিষয় ছাড়া অতিরিক্ত প্রশ্ন করা
(৪) লজ্জাহীনতা ও অশ্লীলতা।

চারটা জিনিস আনন্দ ও সম্মান ফিরিয়ে আনে

(১) তাক্বওয়া,
(২) সত্যবাদীতা,
(৩) দানশীলতা এবং
(৪) আত্মসম্মান রক্ষা

চারটা জিনিস রিযক বৃদ্ধি করে

(১) রাত জেগে তাহাজ্জুদের সালাত আদায় করা,
(২) সূর্যোদয়ের পূর্বে অধিক পরিমানে আল্লাহর যিকর করা,
(৩) নিয়মিত দান করা এবং
(৪) দিনের শুরু ও শেষে আল্লাহর যিকির করা।

চারটা জিনিস রিযক কমিয়ে দেয়

(১) (ফজরের পরে) সকাল বেলা ঘুমিয়ে থাকা,
(২) সালাতে ত্রুটি বা কম করা,
(৩) অলসতা এবং
(৪) প্রতারণা ও বিশ্বাসঘাতকতা।

[যাদ আল-মায়াদ; চিকিৎসা অধ্যায়ঃ ৪/৩৭৮]
وما توفيقى الا بالله

07/08/2023

অত্যন্ত উদ্বেগ, শংকা ও ভয়ের সংবাদ। সকাল থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন হারানো সংবাদ দেখছিলাম। প্রচুর মাদরাসা শিক্ষার্থী হারানোর সংবাদ আসছে। এগুলো কোনো কাকতালীয় ব্যাপার হতে পারে না। মনে হচ্ছে পরিকল্পিত ঘটনা। মাদরাসা নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র হতে পারে। সবগুলো ঘটনাতেই দেখা যাচ্ছে, মাদরাসা পড়ুয়া শিক্ষার্থীরাই ভিকটিম। নিজেও সতর্ক হোন অন্যকেও সতর্ক করুন। অভিভাবকদের সতর্ক করুন। প্রত্যেকটি ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নিন। মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড এর দায়িত্বশীলদেরও বিষয়টিতে নজর দেওয়া উচিত। আল্লাহ সবাইকে হেফাজত করুন।

- দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা।

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 05/08/2023

আলহামদুলিল্লাহ
অদ্য ০৫-০৮-২০২৩ ঈ. দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা'র শিক্ষকবৃন্দ ও কমিটির বিশিষ্ট মুরব্বিদের নিয়ে মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা মাহতাব উদ্দিন সাহেবের UK সফরে যারা বড় অংকের অনুদান প্রদান করেছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম, দক্ষিণভাগ ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান, বিশিষ্ট সমাজসেবক, শিক্ষানুরাগী, দানবীর, লন্ডন প্রবাসী জনাব আলহাজ্ব ফখর উদ্দিন আহমদ সাহেবকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।
আমরা মহান রবের কাছে তাঁর নেক হায়াত ও উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করি।

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 02/08/2023

আলহামদুলিল্লাহ।
দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদরাসার নির্মানাধীন নতুন ভবনের কার্যক্রম পরিদর্শন করে গেলেন, দক্ষিনভাগ ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী পরিবারের বিশিষ্ট ব্যক্তি, অত্র মাদরাসার বড় অংকের দাতা সদস্য, মরহুম আলহাজ আফতাব উদ্দিন সাহেবের সুযোগ্য সন্তান, শিক্ষানুরাগী, সমাজ সেবক, বিশিষ্ট দানবীর ও লন্ডন প্রবাসী আলহাজ ফখর উদ্দিন আহমদ সাহেব।
উনার আগমনে মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উৎফুল্ল ও আনন্দিত। উনাকে মাদ্রাসার পক্ষথেকে অসংখ্য মোবারকবাদ।
আমরা উনার পরিবারের সকল জীবিতদের নেক হায়াত এবং মৃতদের মাগফিরাত কামনা করি ৷ আমিন।

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 18/07/2023

এতদ্বারা সকল থাই গ্লাস ও ওয়ার্কশপ দোকান মালিকদের জানানো যাচ্ছে যে, আপনাদের প্রাণপ্রিয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা'র নতুন বিল্ডিংয়ের ১০টি জানালার গ্রিল ও থাই গ্লাস লাগানো হবে।
এতে সকল দোকান মালিকদের আগামী ২০/৭/২৩ঈ. রোজ বৃহস্পতিবারের মধ্যে নিম্নোক্ত ঠিকানায় নিজ নিজ টেন্ডার জমা দেওয়ার জন্য আহ্বান করা যাচ্ছে।
ঠিকানা: বুশরা এন্টারপ্রাইজ, দক্ষিণভাগ বাজার।

আহ্বানে :
মাওলানা মাহতাবউদ্দিন
পরিচালক, দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা।
মোবা: 01720924284
01723571436

30/06/2023

দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদরাসা— আপনার সন্তানের বিশ্বস্ত ঠিকানা।

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 29/06/2023

ঈদ মোবারক || তাকাব্বালাল্লাহু মিন্না ওয়া মিনকুম।
সবাই কে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা। বছর ঘুরে ত্যাগের মহিমায় মহিমান্বিত পবিত্র ঈদ-উল-আযহা আমাদের মাঝে উপস্থিত। আমরা Darussunnah Gojbhag Madrasah এর পক্ষ থেকে সবাইকে জানাই ঈদ-উল-আযহার শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

শুভেচ্ছান্তে - দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা।

24/06/2023

|| তাকবিরে তাশরিক ||

৯ই জিলহজ ফজরের নামাজ হতে ১৩ ই জিলহজ আসর পর্যন্ত মোট ২৩ ওয়াক্তের ফরজ নামাজের পর পুরুষদের ওপর উচ্চৈঃস্বরে একবার তাকবিরে তাশরিক বলা ওয়াজিব। আর নারীরা নিচু স্বরে পড়বে, যাতে নিজে শোনে।

[ফতোয়ায়ে শামী ২/১৭৮ পৃষ্ঠা৷ ফতোয়ায়ে আলমগীরী ১/৩৭০ পৃষ্ঠা]

ফরজ নামাজ জামাতের সঙ্গে পড়া হোক বা একাকী, ওয়াক্তের মধ্যে পড়া হোক বা কাজা, নামাজি ব্যক্তি মুকিম হোক বা মুসাফির, শহরের বাসিন্দা হোক বা গ্রামের— সবার ওপর ফরজ নামাজের পর একবার তাকবিরে তাশরিক বলা ওয়াজিব।

[দুররে মুখতার : ২/১৮০]

ফরজ নামাজের পর তাকবির বলতে ভুলে গেলে, স্মরণ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাকবির পড়ে নেবে। তবে হ্যাঁ, নামাজের বিপরীত কোনো কাজে লিপ্ত হয়ে গেলে, যেমন— কথা বলা, নামাজের স্থান থেকে উঠে পড়া ইত্যাদি হলে তাকবির বলতে হবে না, বরং ওয়াজিব ছুটে যাওয়ার কারণে আল্লাহর কাছে তওবা করবে।

[শামি : ৬/১৭৯]

তাকবিরে তাশরিকের আমল যেভাবে চালু হয়েছে:-

প্রখ্যাত হাদিসবিশারদ ও বুখারি শরিফের ব্যাখ্যাকার আল্লামা বদরুদ্দিন আইনি (রহ.) বলেন—

যখন হজরত ইবরাহিম (আ.) স্বীয় পুত্র ইসমাঈল (আ.)-কে জবাইয়ের উদ্দেশ্যে গলায় ছুরি রাখলেন, এদিকে আল্লাহর নির্দেশে হজরত জিবরাঈল (আ.) আসমান থেকে একটি দুম্বা নিয়ে দুনিয়ায় আগমন করছিলেন।কিন্তু জিবরাঈল (আ.)-এর আশঙ্কা ছিল, তিনি দুনিয়াতে পৌঁছার আগেই ইবরাহিম (আ.) জবাইপর্ব সমাপ্ত করে বসবেন। ফলে তিনি আসমান থেকে উঁচু আওয়াজে বলে উঠলেন : ‘আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার।’

ইবরাহিম (আ.) আওয়াজ শুনে আসমানের দিকে নজর ফেরাতেই দেখতে পেলেন জিবরাঈল (আ.) একটি দুম্বা নিয়ে আগমন করছেন। ফলে তিনি স্বতঃস্ফূর্তভাবে বলে উঠলেন : ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবর।’ পিতার কণ্ঠে এই কালিমা শুনতেই ইসমাঈল (আ.) উচ্চারণ করলেন : ‘আল্লাহু আকবার, ওয়া লিল্লাহিল হামদ।’

একজন ফেরেশতা আর দুজন প্রিয় নবীর এ বাক্যমালা আল্লাহর খুব পছন্দ হয়। তাই কিয়ামত পর্যন্ত এই বাক্যমালা আইয়ামে তাশরিকে প্রত্যেক ফরজ নামাজের পর পড়াকে ওয়াজিব করে দিয়েছেন।

[ফাতাওয়ায়ে শামি : ২/১৭৮, ইনায়া শরহুল হিদায়া : ১/৪৬৪]
ডিজাইন- মুহাম্মাদ সাঈদ মাহমুদ

23/06/2023

।কুরবানী বিষয়ক দুটি বানোয়াট ঘটনা।

ঈদুল আযহা ও কুরবানীর সময় ঘনিয়ে আসছে,মসজিদে মসজিদে কুরবানীর গতানুগতিক কিছু কাহিনি শুনা যায়।
এর মধ্যে দুটি বানোয়াট ঘটনা, যা প্রায় বক্তা বর্ননা করে থাকেন।

১-ইবরাহীম (আঃ)যখন ইসমাঈল (আঃ)
কে কুরবানী করার জন্য নিয়ে যান,
তখন তাকে এবং তার মা’কে দাওয়াত খাওয়া বা বেড়াতে যাওয়ার কথা বলেন। মা তাকে সাজিয়ে-গুছিয়ে প্রস্তুত করে দেন।
পথিমধ্যে গিয়ে ইবরাহীম (আঃ) ইসমাঈল আলাইহিস সালামকে সত্য কথা খুলে বলেন।একথাটি প্রায় বক্তার মুখে শুনা যায়,যা লোকমুখে ও প্রসিদ্ধ।

অথচ এটি একটি বানোয়াট কিসসা,
নির্ভরযোগ্য কোনো বর্ণনায় পাওয়া যায় না।
কুরআনে কারীমে ইবরাহীম আলাইহিস সালামের স্বপ্নের কথা ও ইসমাঈল আলাইহিস সালামের কাছে তা ব্যক্ত করার কথা সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত হয়েছে।
সেখানে এজাতীয় কিছু নেই। সুতরাং এ ধরনের ভিত্তিহীন কথা বলার বা বিশ্বাস করার কোনো সুযোগ নেই।
এরুপ অবাস্তব কথা বলে সন্তানকে কুরবানীর জন্য নিয়ে যাওয়া- একজন নবীর শানের বিপরিত। একজন নবী এমনটি করতে পারেন না এবং এমনটি ঘটেওনি।

২- আরেকটি কথাও বক্তাদের মুখে শুনা যায়,

ইবরাহীম আলাইহিস সালাম স্বপ্নে দেখেছিলেন,তাঁকে তাঁর প্রিয় বস্তু কুরবানী করতে বলা হচ্ছে।
এ কথাও কোনো নির্ভরযোগ্য সূত্রে পাওয়া যায় না।
কুরআনের আয়াতে স্পষ্ট রয়েছে-
ইবরাহীম আলাইহিস সালাম স্বপ্নে ইসমাঈল আলাইহিস সালামকে যবেহ করতে দেখেছেন। (সুরা সাফফাত,,১০২)
সুতরাং এমন মনগড়া কথা বলার প্রয়োজন কি?
আল্লাহ আমাদের মনগড়া আলোচনা ব্যতিরেকে সত্যিকার কুরআন হাদিস ভিত্তিক কথা বলার তাওফিক দিন।

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 22/06/2023

তালিবুল ইলমের প্রথম ও প্রধান দায়িত্ব দরসিয়াতের বিষয়ে যত্নবান হওয়া। অর্থাৎ -
১. নিয়মতান্ত্রিকভাবে সামনের সবক মুতালাআ করা।

২. দরসে নিয়মিত উপস্থিত থাকা এবং উস্তাযের তাকরীর মনোযোগ সহকারে শোনা ও পাঠ্যাংশ ভালোভাবে বুঝে নেওয়া।

৩. দরসের পর তাকরার ও মুযাকারার মাধ্যমে বিষয়টি ভালোভাবে আত্মস্থ করা।

৪. উস্তাযে মুহতারামের দেওয়া কাজগুলো যত্নসহকারে করা।

৫. তামরীন ও ইজরার প্রতি অধিক গুরুত্ব দেওয়া। উদাহরণস্বরূপ ‘আততারীক ইলাল আরাবিয়া'র সঙ্গে 'আততামরীনুল কিতাবী'-এর তামরীনগুলো যথাযথভাবে করা। নাহু-ছরফের যেসব বহস ও কায়েদা পড়া হয়েছে সেগুলো নিজে নিজে তামরীন করার চেষ্টা করা। কুরআন মাজীদ তিলাওয়াতের সময় সেগুলো ইজরা করা।

৬. মুসান্নিফীনে কেরামের উসলবে আরব এবং তাঁদের ইলমী তাবীরাতের সাথে উনস পয়দা করার চেষ্টা করা।

৭. কিতাবের কিছু গুরুত্বপূর্ণ আলোচনার খোলাসা নিজের ভাষায় লিখে উস্তাদকে দেখানো।

৮. উস্তাযের তত্ত্বাবধানে মুআবিনে নেসাব হিসেবে নির্বাচিত সামান্য কিছু শুরূহ-হাওয়াশী বা কিতাব মুতালাআ করা এবং সেখানকার কিছু বহস উস্তাদকে শুনিয়ে নিজের বুঝ যাচাই করা এবং উস্তাদ যে সমস্যা ও দুর্বলতাগুলো ধরিয়ে দেবেন। সেগুলো দূর করার চেষ্টা করা।

৯. আসাতিযায়ে কেরামের কাছে থেকে আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাআহর মাসলাক ভালোভাবে বুঝে নেওয়া এবং আকাবির ও আসলাফের যওক ও মেযাজ বোঝার চেষ্টা করা।

১০. আদব, আখলাক ও আফকারের এসলাহের চেষ্টা করা।

সূত্র : মাসিক আল কাউসার, জুন ২০২৩ঈ.

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 21/06/2023

আলহামদুলিল্লাহ
দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসার তিনতলা বিশিষ্ট ভবনের প্রথম তলার একাংশের ছাদ ঢালাইর কাজ সমাপ্ত হয়েছে।
লন্ডন সফর শেষে কাজ পরির্দশন করছেন মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা Moulana Mahtab Uddin সাহেব।
দেশ ও দেশের বাইরে যে যেখান থেকে মাদ্রাসায় সাহায্য সহযোগিতা করেছেন। বিশেষ করে লন্ডন সফরে মাদ্রাসার বিল্ডিং ফান্ডে যারা সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন সবার কৃতজ্ঞতাসহ শোকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

19/06/2023

গুরুত্বপূর্ণ আমল💖

16/06/2023

Our Madrasa🥰
Darussunnah Gojbhag Madrasah

❤️

14/06/2023

আমাদের সন্তান এবং আমাদের কর্তব্য ||

আমাদের কর্তব্য হল, সন্তানের দুনিয়াবি প্রয়োজনগুলো যথাসাধ্য পূরণ করা এবং সে যেন আখেরাতে জাহান্নাম থেকে বেঁচে জান্নাত লাভের মাধ্যমে সর্বোচ্চ সফলতা অর্জন করতে পারে— এজন্য আপ্রাণ চেষ্টা করা। আল্লাহ তাআলা বলেন—

يٰۤاَيُّهَا الَّذِيْنَ اٰمَنُوْا قُوْۤا اَنْفُسَكُمْ وَ اَهْلِيْكُمْ نَارًا وَّ قُوْدُهَا النَّاسُ وَ الْحِجَارَةُ...

হে ঈমানদারগণ! তোমরা নিজেদের ও তোমাদের পরিবার-পরিজনকে সেই আগুন থেকে রক্ষা কর, যার ইন্ধন হবে মানুষ ও পাথর...। —সূরা তাহরীম (৬৬) : ০৬

আমরা অনেকেই সন্তানের অস্থায়ী ভবিষ্যতের সফলতার জন্য তো নানান চেষ্টা ও তাদবীর করি; কিন্তু তার চিরস্থায়ী সফলতার ব্যাপারে উদাসীন থাকি।

[মাসিক আল কাউসার/ জুন ২০২৩
মাওলানা আব্দুল্লাহ আল হাসান]

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 05/06/2023

এটি কোন রুপকথার গল্প নয় ; সবকিছুই বাস্তব। যদি সকল মসজিদে এমন ইমাম হতেন এবং সকল মুসল্লীরা ইমামকে এভাবে মেনে নিতেন তাহলে আমরা হারিয়ে যাওয়া সেই সোনালী অতীত আবার দেখতে পেতাম।লেখাটি সংগৃহীত, ঘটনাগুলো আমাদের একদম পাশের।

ইমাম সাহেব ও গ্রামবাসি :

☆ইমাম সাহেব বললেন; আমার এখানে এবার কিছু লোক এতেকাফ করতে আসবে।
>গ্রামবাসি ইফতারের সময় নিজ নিজ বাড়ি থেকে ইফতার নিয়ে হাজির। সেহরির সময় শুরু হলো প্রচুর বৃষ্টি তবুও গ্রামের লোকজন বৃষ্টির মাঝেও এতেকাফরতদের জন্যে খাবার নিয়ে হাজির।

☆ইমাম সাহেব বললেন; গ্রামের ভিতরে শিশুদের জন্যে একটি মাদ্রাসা হওয়ার দরকার, তবে সে মাদ্রাসার যাবতীয় ব‍্যয়ভার গ্রামবাসিকে বহন করতে হবে।
>লোকজন মসজিদের সাথেই মাদ্রাসা নির্মাণ করে দিয়ে তা চালিয়ে নিতে লাগলো।

☆ইমাম সাহেব বললেন; আমার প্রতিষ্টানের ছাত্রদের লজিংয়ের ব‍্যবস্থা দরকার।
>গ্রামের প্রতিটি ঘর হয়েগেল একেক ছাত্রের নিজ বাড়ির মতো।সামর্থবান থেকে নিয়ে দিনমজুর পর্যন্ত কেউই লজিং দিতে কার্পণ্য করেনি।

☆ইমাম সাহেব বললেন; আমার মাদ্রাসার ছাত্ররা এখানে খেয়ে মাদ্রাসায় গিয়ে থাকা কঠিন।
>গ্রামবাসি মসজিদের সাথেই মাদ্রাসার জন্যে ছাত্রাবাসের ব‍্যবস্থা করে দিলো। সকল মেধাবী আর ভালো ছাত্রদের ঠিকানা হয়েগেল সেই ছাত্রাবাস।

☆ইমাম সাহেব বললেন; গ্রামের ভিতরে ফেরিওয়ালার বিচরণে মহিলাদের পর্দা লংঘন হয়।
>গ্রামবাসি আইন করলো; এই গ্রামে ফেরিওয়ালার প্রবেশ নিষেধ।

☆ইমাম সাহেব বললেন; মসজিদ পুনরায় নির্মাণ করবো, তবে এই নির্মাণের জন্যে বাহিরে চাদা করা উচিৎ নয়, আপনারা নিজেরাই যাবতীয় ব‍্যয় নির্বাহ করুন।
>গ্রামবাসি এই মজলিসেই ষাট লক্ষ টাকা অনুদানের ওয়াদা করেন।

☆ইমাম সাহেব বললেন; গ্রামের কোনো কোনো ঘরে শুনা যাচ্ছে এখনো টিভি চলে।
>গ্রামবাসি একদল যুবককে পুরো গ্রাম ঘুরে ঘুরে টিভির খবর নিয়ে সেসব বন্দ করতে পদক্ষেপ নিতে নিয়োজিত করেন।

☆ইমাম সাহেব বললেন; আমি চাই এখন অবসর নিবো, শারীরিক অসুস্থতা ও আমার রয়েছে।

>গ্রামবাসি বললেন, আপনি আমাদের ইমাম, আপনাকে কোনো দায়িত্ব আদায় করতে হবেনা। আপনাকে উপস্থিত থাকতে হবে এমনও নয়। ইমাম তাদের আবদার রক্ষা করেছেন। ইন্তেকালের পরও ইমাম সাহেব কাঁধে হয়ে ঐ গ্রামে গিয়েছেন এবং গ্রামবাসির কাঁধে হয়ে আপন ঠিকানায় সোপর্দ হয়েছেন।

☆ইমাম সাহেব বললেন; আমি যেহুতু এই মসজিদের ইমাম, তাই এই মসজিদের ক‍্যাশিয়ারকে শতভাগ আমানতদার হতে হবে।
>গ্রামবাসি বললেন, আপনি ইমাম, খতিব, কেশিয়ার এবং আমাদের অভিভাবক।

☆ইমাম সাহেব বললেন; এতেকাফে আমার বেশি সংখ্যক মুহিব্বীন আসতেছেন, আপনারা বাড়ি থেকে তাদের খাবার কতো নিয়ে আসবেন? মসজিদে খাবারের ইন্তেজাম করলে ভালো হয়।
>গ্রামবাসি তখন আরজ করলেন : হুজুর, এখানে এতেকাফ করতে যারাই আসবে হাজারো হলে সমস্যা নেই। আপনার সামনেই তাদের খাবারদাবারের যাবতীয় ব‍্যবস্থা হবে। আর সেই খাবার পরিবেশন আমাদের যুবকরা করবে। আপনার ছাত্রদের সে ফিকির করতে হবেনা।

৪৮বছরের মান‍্যবর সেই ইমাম হচ্ছেন আমাদের শায়খ আল্লামা মুফতি ইউসুফ শ‍্যামপুরী রহমতুল্লাহি আলাইহি।
আর মদীনার আনসার তুল‍্য সেই গ্রামবাসি হচ্ছেন, হরিপুর এলকার 'বালিপাড়া' গ্রামবাসি।

আল্লাহ্ গ্রামবাসিকে উত্তম বদলা দান করুন। শায়খের দরজাত বুলন্দ করুন। আমিন

02/06/2023

গত বছরের রিপোর্ট ছিল প্রতি মাসে গড়ে ৩৭ জন তরুণ শিক্ষার্থী আত্ম*হ*ত্যা করছেন। আত্ম*হ*ত্যার প্রবণতা এ প্রজন্মে বেড়েই চলেছে। কেন আত্মহননের মতো সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন তারা? এর থেকে উত্তরণের উপায় কী?

আলোচক :: মাওলানা শরীফ মুহাম্মদ

Photos from দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার's post 31/05/2023

#নূরানী শিক্ষকদের করণীয় ও বর্জনীয়।

১: ক্লাসে মোবাইল চালানো পরিহার করুন,(একান্ত প্রয়োজন ছাড়া)।
২: ক্লাস রুমে ঘুমানো পরিত্যাগ করুন।
৩: অযথা বাহিরে, অফিসে,কিংবা কাহারো সাথে গল্প করে ক্লাসের সময় নষ্ট করবেন না।
৪: কোন ছাত্রকে অতিরিক্ত ভালবাসা দেখাবেন না। সকলকে সমান চোখে দেখবেন।
৫: ছাত্রদের সাথে মার্জিত ভাষায় কথা বলবেন। কর্কশ ও গালাগালি করবেন না।
৬: অন্য শিক্ষককের দোষ খুজবেন না।
এবং ছাত্রদের সামনে মাদ্রাসার কিংবা কোন শিক্ষকের দুর্নাম করবেন না।
৭: কোন ছাত্রকে কান,ঘাড়,মাথা,ইত্যাদিতে প্রহার করবেন না।
এবং হাত দিয়েও প্রহার করবেন না। ছাত্রের চেহারা, কান, মাথা ও স্পর্শকাতর কোন অঙ্গে বেত্রাঘাত করবেন না।
৮: ছাত্রদের ভালো কাজের প্রশংসা করবেন। খারাপ কাজের নিন্দা না করে বুঝিয়ে দিবেন।
৯: ছাত্র-ছাত্রীদের লেখার প্রতি বিশেষ ভাবে নজর দেন,
ক্লাসে চক দিয়ে লেখানোর সময় প্রত্যেকটা ছাত্রছাত্রীর প্রতি নজর রাখেন।
১০: নিয়মিত খাতায় লেখা দেন.
মাঝেমধ্যে ক্লাসে দুই থেকে তিন লাইন খাতায় লেখান।
১১: সামনে পড়ানোর আগে পিছনের পড়াগুলো জপিয়ে নেন,
নতুন পড়াগুলো বারবার নিজে বলে দেন।
১২: ছাত্রদের থেকে একজন একজন করে পড়া শুনবেন,
পড়া ভুল হলে ভুল ধরে শুধরিয়ে দিবেন।
১৩: রাগান্বিত অবস্থায় শাস্তি দেবেন না।ছাত্রকে শাস্তির উপযুক্ত হতে দেবেন না। বিশেষ পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে কর্তৃপক্ষকে জানাবেন।
১৪: ছাত্র দ্বারা কোন ধরনের শারীরিক খেদমত নিবেন না।
১৫: কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া শিক্ষকের মোবাইল থেকে কোন ছাত্রকে ফোন করার সুযোগ দিবেন না।
১৬: ছাত্রের অভিভাবকের সাথে আচার ব্যবহার ও সম্পর্কের ক্ষেত্রে হুশিয়ার থাকবেন। ব্যক্তিগত আদান প্রদান থেকে বিরত থাকবেন।
১৭: সুন্নতের পাবন্দি করবেন। ক্লাসের উপযুক্ত পোশাক পরিধান করবেন। ছাত্রদের তরবিয়তের প্রতি বিশেষ নজরদারী করবেন।
১৭: ঘুম, গোসল, খানা, নামাজের সময় ও আছরের পরের সময় ছাত্রদেরকে শিক্ষকের বিশেষ তত্বাবধানে রাখবেন।
১৮: প্রাতিষ্ঠানিক আইন-কানুনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবেন।
১৯: সব ধরনের লেনদেন পরিচ্ছন্ন রাখবেন।
২০: ছাত্রদের কষ্ট বোঝার চেষ্টা করবেন।

-------------------------বিশেষ দ্রষ্টব্য------------------
মনে রাখবেন আল্লাহ পাক আপনাকে ছাত্র গড়ার কারিগরের স্থানে বসাইছেন।
প্রত্যেকটা ছাত্রের হক আদায় করা আপনার কর্তব্য।
আল্লাহ পাক আমাদের সকলকে প্রত্যেকটা সেক্টরের হক আদায় করার তৌফিক দান করুক। আমীন।

27/05/2023

খতমে নবুয়ত জিন্দাবাদ!
আমাদের নবী কলিজার টুকরা নবী মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পরে নবী নাই।
সংসদে আইন চাই।
আজকের আয়োজন সফল হোক।

27/05/2023

সিলেটে আজকে ঐতিহাসিক রেজিস্ট্রারি মাঠের খতমে নবুওয়াত মহাসম্মেলন কামিয়াব হোক।

দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা💖

26/05/2023

কাদিয়ানী সম্প্রদায়ের ঈমান বিধ্বংসী তৎপরতা বন্ধে ও রাষ্ট্রীয় ভাবে অমুসলিম ঘোষণার দাবীতে সিলেট বিভাগীয় খতমে নবুওয়াত মহা সম্মেলনে দলে দলে যোগ দান করুন।
তারিখ: ২৭ মে শনিবার
স্থান : সিলেট রেজিষ্ট্রারি মাঠ।

23/05/2023

আলহামদুলিল্লাহ

💖💖

23/05/2023

💖💖

23/05/2023
23/05/2023

আলহামদুলিল্লাহ, দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা
দক্ষিণভাগ, বড়লেখা, মৌলভীবাজার এর তিন তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবনের প্রথম তলার একাংশের ঢালাইয়ের কাজ সম্পন্ন হচ্ছে।
সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।

23/05/2023
23/05/2023

আলহামদুলিল্লাহ,
দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসার ছাদ ঢালাইয়ের কাজ দোয়ার মাধ্যমে শুরু হচ্ছে।

Photos from Darussunnah Gojbhag Madrasah 's post 22/05/2023

অদ্য ২২-০৫-২০২৩ঈসায়ী রোজ সোমবার দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক মাওলানা সাঈদুর রহমান সাহেবের সভাপতিত্বে আল-করীম ছাত্র সংসদের ২০২৩/২৪ সনের কমিটি গঠন করা হয়।

দায়িত্বশীলবর্গ:
১/সভাপতি, মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সাহেব।(শিক্ষক)
২/সহসভাপতি, মাও. মুজাহিদুল ইসলাম সাহেব।(শিক্ষক)
৩/সাধারণ সম্পাদক, ওলিউল্লাহ। (সানা: আম্মাহ ১ম বর্ষ)
৪/ সহসাধারণ সম্পাদক, নাছির উদ্দিন।(মুতা:৪র্থ বর্ষ)
৫/পাঠাগার সম্পাদক, মিজান আহমদ।(মুতা:৪র্থ বর্ষ)
৬/সহপাঠাগার সম্পাদক, সুলতান আহমদ।(মুতা: ৩য় বর্ষ)
৭/দেয়ালিকা সম্পাদক,আব্দুস সামাদ।(মুতা:৪র্থ বর্ষ)
৮/সহকারী দেয়ালিকা সম্পাদক,মাহদি হাসান।(মুতা:২য় বর্ষ)।
ক্লাস প্রতিনিধিগন:
১/ওলিউল্লাহ। (সানা: আম্মাহ ১ম বর্ষ)
২/হুসাইন আহমদ।(মুতা:৪র্থ বর্ষ)
৩/জাহিদ হাসান।(মুতা:৩য় বর্ষ)
৪/রায়হান আহমদ।(মুতা:২য় বর্ষ)
৫/রুহুল আমীন।(মুতা:১ম বর্ষ)
৬/রফিকুল ইসলাম।(ইব: ৫ম বর্ষ)
৭/মাশহুদ আহমদ।(ইব:৪র্থ বর্ষ)
৮/নাজিম উদ্দিন।(ইব:৩য় বর্ষ)
৯/হাফিজুর রহমান।(হিফজ)

Photos from Darussunnah Gojbhag Madrasah 's post 22/05/2023

আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহ তায়ালার অশেষ মেহেরবানীতে দেশ বিদেশের দ্বীন দরদী মুসলিম ভাই বোনদের সাহায্য সহযোগিতায় বিশেষ করে ইংল্যান্ডে অবস্থানরত দ্বীন প্রেমীদের আর্থিক অনুদানে "দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা"র' ৩ তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবনের নিচের তলার একাংশের ছাদ ঢালাইয়ের কাজ আগামী ২৩-০৫-২০২৩ ইং রোজ মঙ্গলবার সম্পন্ন হবে।
এতে আপনাদের উপস্থিতি ও সার্বিক সহযোগিতার জন্য সবিনয় আহবান করছি।


আহবানে
মাওঃ সাহিদুর রহমান
ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী মুহতামিম
দারুসসুন্নাহ গজভাগ মাদ্রাসা।

22/05/2023

আলহামদুলিল্লাহ,
আগামীকাল আমাদের মাদ্রাসার তিন তলা বিশিষ্ট বিল্ডিংয়ের প্রথম তলার একাংশের ছাদ ঢালাই দেওয়া হবে, ইন শা আল্লাহ।

💖

18/05/2023

সিলেটের প্রখ্যাত আলেম, দরগাহ মাদরাসার স্বনামধন্য মুহতামিম ও শায়খুল হাদিস, হযরত মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী হুজুর গতরাত আপন মাওলার সান্নিধ্যে পাড়ি জমালেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

হযরত সম্পর্কে বেশ কিছু উপকারী তথ্য অনলাইনে দেখতে পেলাম। সেখান থেকে মাত্র কয়েকটি তথ্য এখানে উপস্থাপন করা হলো।

মাওলানা আবদুল কাদির মাসুম সাহেব লিখেছেন, "গাছবাড়ী হুজুরের সবচেয়ে বড় গুণ ছিল যেটি তা হলো, কেউ সহজেই তাঁর কাছে যেতে পারতো, তাঁর সাথে মিশতে পারতো, মন খুলে তাঁর সাথে কথা বলতে পারতো। হাসান বসরী রহ. হক্কানী আলেমের পরিচয়ে নয়টি সিফাত উল্লেখ করেছিলেন তন্মধ্যে একটি ছিল «الجامع بين الناس»। এ গুণটির ঝলক হুজুরের মাঝে সুস্পষ্ট পরিলক্ষিত হত।"

মাওলানা জিয়াউর রহমান সাহেব লিখেছেন, "গাছবাড়ী হুজুর রাহ.র একটি চিরায়ত আমল ছিলো- হুজুর ফজর পর ঘুমাতেন না৷ যার কারণে হাদিসে বর্ণিত সকালের বরকত হুজুর পরিপূর্ণভাবেই হাসিল করেছেন৷ আমৃত্যু হুজুরের শরীরে কোনো রোগ ছিলো না৷ জীবনে কোনো অভাব-অনটন, সংকট ছিলো না৷"

মাওলানা শাহ মমশাদ সাহেব লিখেছেন, "দুহাজার সালের পর থেকে নিয়ে সিলেটের ঈলমী অঙ্গনে বিশেষত ইসলামদ্রোহী শক্তির মুকাবেলায় দলমত নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ক্ষেত্রে গাছবাড়ি হুজুর ছিলেন সকলের আস্থার বাড়ি।প্রেরণার কেন্দ্র। সিলেটের প্রতিটি রাজনৈতিক সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, প্রশাসনিক কর্মকর্তা আর ধর্মীয় অঙ্গনে বিগত দুদশক যাবত হুজুর ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয়। প্রভাবশালী বুজুর্গ ব্যক্তিত্ব। একজন বর্ষীয়ান ব্যক্তিত্ব হওয়া সত্বেও মাঠে ময়দানে কাজের ক্ষেত্রে ছিলেন একজন তরুণ।"

মাওলানা হোসাইন আহমদ ভাই লিখেছেন, "গাছবাড়ি হুযুরের জীবনের শেষদিনের সফরটাও ছিলো খতমে নবুওয়ত নিয়ে। আল্লাহ পাক যেনো হুযুরের সকল দ্বীনি খিদমাত কবুল করেন!"

17/05/2023

সিলেটের শীর্ষস্থানীয় মুরব্বি, জামেয়া দরগাহে হযরত শাহজালাল রহ. এর সুনামধন্য মুহতামিম ও শায়খুল হাদীস, আযাদ দ্বীনী এদারা তা’লিম বাংলাদেশের পরিক্ষা নিয়ন্ত্রক আল্লামা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ি হুজুর ইন্তেকাল করেছেন। আল্লাহ হযরতকে জান্নাতের উচ্চ মাক্বাম দান করুন! আমীন।

এডমিন

Want your school to be the top-listed School/college in Maulvi Bazar?

Click here to claim your Sponsored Listing.

Location

Category

Telephone

Website

Address


Gojbhag, Dokshinbhag, Barlekha
Maulvi Bazar

Opening Hours

09:00 - 17:00
Other Schools in Maulvi Bazar (show all)
Alumni of The Flowers K.G. & High School, Moulvibazar Alumni of The Flowers K.G. & High School, Moulvibazar
Court Road, Moulvibazar
Maulvi Bazar, 3200

Best School In Moulvibazar....

Regional Nursery School Regional Nursery School
উত্তর ভাগ, বরমচাল/৩২৩৬
Maulvi Bazar, 3237

21/12/22

চন্দ্রনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শ্রীমঙ্গল চন্দ্রনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শ্রীমঙ্গল
Sreemangal
Maulvi Bazar, 3210

চন্দ্রনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

হাজী ইনজাদ আলী উচ্চ বিদ্যালয়      Hazi Inzad Ali High School হাজী ইনজাদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় Hazi Inzad Ali High School
Post Office/Shilua Bazar , Police Station/Juri , District/Moulvibazar,. H576+82 North Shiluya
Maulvi Bazar, 3251

Well Come to Hazi Inzad Ali High School Official Page..

Camellia Duncan Foundation School Camellia Duncan Foundation School
Moulvibazar
Maulvi Bazar

ডফ ডফ
Sreemangal
Maulvi Bazar, 3210

Gollashangon Dakhil Madrasah GDM Gollashangon Dakhil Madrasah GDM
Gollashangon, Barlekha, Moulvibazar, Sylhet
Maulvi Bazar, 3253

শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড

Yello Flower Kinter Garten School Yello Flower Kinter Garten School
Maulvi Bazar

Barlekha, Moulvibazar

ইটাউরি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় - Itauri Government Primary School ইটাউরি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় - Itauri Government Primary School
Itauri, Barlekha
Maulvi Bazar, 003253

“উন্নয়নের অভিযাত্রায় অদম্য বাংলাদেশ?

Jury Govt. Model High School Jury Govt. Model High School
Juri, Moulvibazar
Maulvi Bazar, 3251

PC Govt.Online School,   Barlekha, Moulvibazar. PC Govt.Online School, Barlekha, Moulvibazar.
Barlekha
Maulvi Bazar

PC Govt.Model High School is a well known institution of Barlekha Upozila under Moulvibazar district.

Dar-ul Hikmah Islamic School Dar-ul Hikmah Islamic School
Moulvibazar
Maulvi Bazar, 3214

দারুল হিকমাহ ইসলামিক স্কুল ক্যাম্পাস