IGS- International Grammar School, Rangpur

IGS- International Grammar School, Rangpur

IGS follows British curriculum under the University of London and National curriculum in English version. Though English medium education is given priority

IGS - International Grammar School has been established to ensure and provide quality education to compete the global standard of education for the children of Northern Bangladesh especially for the greater Rangpur Districts, the most disaster prone areas of Bangladesh. This region has been experiencing long hazards of natural disaster like flood, drought, cold wave and famine-Monga which shatter

Photos from IGS- International Grammar School, Rangpur's post 20/03/2023

প্রথম আলো ট্রাস্টের আয়োজনে এবং বন্ধুসভার সহযোগিতায় রংপুর আইজিএস স্কুলে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক পরামর্শ সহায়তা সভা অনুষ্ঠিত।

17/03/2023
Photos from IGS- International Grammar School, Rangpur's post 16/03/2023

Cooking club

06/03/2021

Collected
বাবার সাথে প্রায় ঘন্টাখানেক ধরে ব্যাংকে বসে আছি। বিরক্ত হচ্ছি খুব। যতনা নিজের উপর। তার চেয়ে বেশি বাবার উপর। অনেকটা রাগ করেই বললাম- বাবা- কতবার বলেছি- অনলাইন ব্যাংকিংটা শিখো।
এটা শিখলে কি হবে?
ঘরে বসেই তুমি এই সামান্য কাজটা করতে পারতে। শুধু ব্যাংকিং না। শপিংটাও তুমি অনলাইনে করতে পারো। ঘরে বসে ডেলিভারি পেতে পারো। খুবই সহজ। কিন্তু এই সহজ জিনিসটাই করবেনা।

করলে আমাকে ঘরের বাইরে বের হতে হতোনা- তাই না?

জ্বি বাবা তাই। এখানে এসে ঘন্টা খানেক অনর্থক বসে থাকতে হতোনা।
এরপর বাবা যা বললেন- তাতে আমি নির্বাক হয়ে গেলাম।
বাবা বললেন- এতো সময় বাঁচিয়ে তোমরা কি করো। ফোনেইতো সারাক্ষণ টিপাটিপি করো। কবে শেষদিন তুমি তোমার ফুফুর সাথে কথা বলেছো? দশ হাত দূরে প্রতিবেশী বৃদ্ধ জামিল চাচার খবর নিয়েছো। অথচ, আপন জনের সাথে দেখা করতে দশ মাইল পথ হেঁটেছি। সময় বাঁচানোর চিন্তা করিনি। মানুষ যদি মানুষের পাশেই না যায়- তবে এতো সময় বাঁচিয়ে কি হবে বলো।

বাবার কথা পাশ থেকে মানুষেরা শুনছেন। আমি চুপচাপ বসে আছি।

বাবা বললেন- ব্যাংকে প্রবেশের পর থেকে চারজন বন্ধুর সাথে কোশল বিনিময় করেছি। তুমি জানো -আমি ঘরে একা। তাই ঘর থেকে বের হয়ে আসাটাই আমার আনন্দ। এইসব মানুষের সাহচর্যটাই আমার সঙ্গ। আমারতো এখন সময়ের কমতি নেই। মানুষের সাহচর্যেরই কমতি আছে। ডিভাইস হোম ডেলিভারি এনে দিবে। মানুষের সাহচর্যতো আমাকে এনে দিবেনা। মনে পড়ে, দু বছর আগে আমি অসুস্থ হয়ে পড়েছিলাম। যে দোকান থেকে আমি দৈনন্দিন কেনাকাটা করি- তিনিই আমাকে দেখতে গিয়েছিলেন। আমার পাশে বসে থেকে মাথায় হাত রেখেছিলেন। চোখ অশ্রুসিক্ত হয়েছিলো। তোমার ডিভাইস বড়জোড় একটা যান্ত্রিক ইমেইল পাঠাবে। কিন্তু আমার পাশে বসে থেকে চোখের অশ্রুতো মুছে দিবেনা। চোখের অশ্রু মুছে দেয়ার মতো কোনো ডিভাইস কি তৈরি হয়েছে।

সকালে হাঁটতে গিয়ে তোমার মা পড়ে গিয়েছিলেন। কে তাকে ঘরে পৌঁছে দিয়েছিলো? অনলাইন মানুষের একাউন্ট চিনে। সেতো মানুষ চিনেনা। মানুষের ঠিকানা চিনে। রাস্তায় পড়ে থাকা মানুষের ঘরতো চিনেনা।
এই যে মানুষ আমার শয্যা পাশে ছিলো- তোমার মাকে ঘরে পৌঁছে দিলো। কারণ- দৈনন্দিন নানা প্রয়োজনে একজন আরেকজনকে চিনেছি। সবকিছু অনলাইন হয়ে গেলে- মানুষ "হিউম্যান টাচটা" কোথায় পাবে বলো? আর পায়না বলেই- পাশের ঘরে মানুষ মরে গিয়ে লাশ হয়ে থাকে- দূর্গন্ধ না আসা পর্যন্ত কেউ কারো খবরও আর রাখেনা। বড় বড় এ্যাপার্টম্যান্টগুলো আমাদের এ্যাপার্টই করে দিয়েছে। পুরো গ্রামে একটা টেলিভিশনে কোনো অনুষ্ঠান একসাথে দেখে সবার আনন্দ আমরা একসাথে জড়ো করতাম। এখন আমরা রুমে রুমে নানা ডিভাইস জড়ো করেছি। আনন্দ আর জড়ো করতে পারিনা।

এই যে ব্যাংকের ক্যাশিয়ার দেখছো। তুমি উনাকে ক্যাশিয়ার হিসাবেই দেখছো। সেলসম্যানকে সেলসম্যান হিসাবেই দেখছো। কিন্তু আমি সুখ দুঃখের অনুভূতির একজন মানুষকেই দেখছি। তার চোখ দেখছি। মুখের ভাষা দেখছি। হৃদয়ের কান্না দেখছি। ঘরে ফিরার আকুতি দেখছি । এই যে মানুষ মানুষকে দেখা এটা বন্ধন তৈরি করে। অনলাইন শুধু সার্ভিস দিতে পারে। এই বন্ধন দিতে পারেনা। পণ্য দিতে পারে, পূণ্য দিতে পারেনা। এই যে মানুষের সাথে হাসিমুখে কথা বলা- কোশলাদি জিগ্যেস করা। এখানে শুধু পণ্যের সম্পর্ক নাই। পূণ্যের সম্পর্কও আছে বাবা।

বাবা, তাহলে টেকনোলজি কি খারাপ?

টেকনোলজি খারাপ না। অনেক কিছু সহজ করেছে নিঃসন্দেহে সত্য। জুমে লাখে লাখে ছেলেমেয়েরা পড়ছে, শিখছে। এটাতো টেকনোলজিরই উপহার। তবে, টেকনোলজির নেশাটাই খারাপ। স্ক্রিন এ্যাডিকশান ড্রাগ এ্যাডিকশানের চেয়ে কোনো অংশে কমনা। দেখতে হবে- ডিভাইস যেন আমাদের মানবিক সত্তার মৃত্যু না ঘটায়। আমরা যেন টেকনোলজির দাসে পরিণত না হই। মানুষ ডিভাইস ব্যবহার করবে। মানুষের সাথে সম্পর্ক তৈরি করবে। কিন্ত ভয়ঙ্কর সত্য হলো -এখন আমরা মানুষকে ব্যবহার করি আর ডিভাইসের সাথে সম্পর্ক তৈরি করি। মানুষ ঘুম থেকে ওঠে আপন সন্তানের মুখ দেখার আগে স্ক্রিন দেখে- সায়েন্টিফিক রিসার্চ ইন্সটিউট এটাকে ভয়ঙ্কর মানসিক অসুখ বলে ঘোষনা করেছে। কিছুদিন আগে আশা ভোসলে একটা ছবি পোস্ট করে ক্যাপশান লিখেছেন- আমার চারপাশে মানুষ বসে আছে। কিন্তু কথা বলার মানুষ নেই। কারণ সবার হাতে ডিভাইস।

বাবা দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললেন- জানিনা ভুল বলছি কিনা, তবে আমার মনে হয়- তোমরা পণ্যের লগো যতো চিনো। স্বজনের চেহারা তত চিনোনা। তাই, যত পারো মানুষের সাথে সম্পর্ক তৈরি করো। ডিভাইসের সাথে না। টেকনোলজি জীবন না। স্পেন্ড টাইম উইথ পিপল, নট উইথ ভিডাইস।

বাবাকে চাচা বলে কে একজন ডাক দিলো । বাবা কাউন্টারের দিকে হেঁটে যাচ্ছেন। এই প্রথম আমি বুঝতে পারলাম। বাবা ক্যাশিয়ারের দিকে যাচ্ছেন না। একজন মানুষ মানুষের কাছেই যাচ্ছেন। বাবাকে আমি অনলাইন শিখাতে চেয়েছিলাম। বাবা আমাকে লাইফলাইন শিখিয়ে দিয়ে গেলেন।
Post Courtesy আরিফ মাহমুদ

Want your school to be the top-listed School/college?

Videos (show all)

Telephone

Website