St. Xavier's Ex. Students XAVA

Contact information, map and directions, contact form, opening hours, services, ratings, photos, videos and announcements from St. Xavier's Ex. Students XAVA, Education, Pahartali, Chittagong.

01/11/2021

মেয়েরা কি স্বামীর নাম বা টাইটেল ব্যাবহার করতে পারবেঃ
▪▫▪▫▪▫▪▫▪▫▪▫▪▫

এটা অন্যায় এবং ইসলাম তা সমর্থন করে-না। প্রত্যেক সন্তান তার পিতার পরিচয়ে পরিচিত হবে। বিবাহ সূত্রে কখনোই বংশ পরিচয় পরিবর্তন হয়-না।
মুসলিম নারীদের অনেকেই বিয়ের পর নিজের নাম পরিবর্তন করে স্বামীর নামকে নিজের নামের অংশ বানিয়ে ফেলে। বর্তমানে এটি ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। যেমন; একজন মেয়ের বাবার দেয়া নাম ফাতেমা। রফিক নামে ১জনের সাথে তার বিয়ের পর তার নাম হয়ে যায় মিসেস রফিক বা ফাতেমা রফিক। ইসলামী শরিয়তের দৃষ্টিতে এটা ঠিক নয়। মুসলিম নারীদের উচিত বিয়ের পরও তার পৈতৃক নাম ঠিক রাখা। কারণ এটা তার একেবারেই নিজস্ব, তার নাম রাখার সময় স্বামী বা স্বামীর পরিবারের এখানে কোনো ভূমিকা থাকে-না, নাম রাখার সুযোগ থাকে-না। নামই ১টি মেয়ের পরিবার ও বংশ পরিচয় বহন করে। আমরা হিন্দুয়ালী ও পশ্চিমা বিশ্বের সংস্কৃতি অনুসরণ করতে গিয়ে এমন অনেক রিতি অনুকরণ করছি, যেগুলোর বিষয়ে ইসলামী শরিয়তে কোনো ভিত্তি নেই।

আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতির ভিত্তি হলো পবিত্র কুর’আন এবং সর্বশ্রেষ্ঠ ও শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর বাণী, কর্ম ও অনুমোদিত উপদেশ, সাহাবী (রাঃ), তাবেঈন ও তাবে তাবেঈনদের কথা, কাজ ও সম্মতি যাকে শরিয়তের ভাষায় ‘সুন্নাহ’ বলা হয়।
মহানবী (সাঃ) বা সাহাবীগণের (রাঃ) জীবনী ও কর্মের মাঝে স্বামী/স্ত্রীর নাম বা বংশীয় ধারা যোগ করা বা গ্রহণ করার কোনো নজির নেই।
যদি স্বামীর নামে পরিচিত হওয়া বা স্বামীর নাম নিজের নামের সাথে যুক্ত করা আভিজাত্য বা মর্যাদার ব্যাপার হতো, তাহলে আমাদের প্রিয়নবী (সাঃ)'র স্ত্রীগণ (উম্মাহাতুল মু’মিনীনগণ) তাঁদের নামের সাথে হযরত (সাঃ)'র নাম যুক্ত করতেন। কিন্তু বাস্তবতা হলো তাঁদের কেউই তা করেননি। তারা প্রত্যেকে নিজেদের পিতার নামেই পরিচিত ছিলেন, যদিও তাঁদের কারো কারো পিতা কাফির ছিল। সুতরাং আমরা আমাদের পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে এমন কোন বিষয় অবলম্বন করতে পারিনা যার অনুমোদন ইসলামে নাই বা নবী (সাঃ) ও খলিফায়ে রাশেদীন ও সাহাবাদের যুগে ছিলোনা।
হযরত ‘আয়েশা সিদ্দীকা (রাঃ) বিয়ের পর তাঁর নাম পরিবর্তন করে ‘আয়েশা মুহাম্মদ’ রাখেননি। বরং তিনি তাঁর পিতা আবু বক্কর সিদ্দীক (রাঃ) এর পরিচয় অক্ষুণ্ন রেখেছেন।
বাবা কর্তৃক প্রদত্ত নাম ঠিক রাখার জন্য মহান "আল্লাহ তা‘আলা" আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন। কারণ ঐ নামটি ব্যক্তির বংশের পরিচায়ক। কুরআনে আছে: ‘তোমরা তাদেরকে তাদের পিতার নামে ডাক।’ (আল-কুরআন, ৩৩:৫) এই আয়াতটি পালক পুত্রদেরকে তাদের প্রকৃত পিতার নামে ডাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কেননা যারা বর্তমানে তাদের লালন-পালন করছেন বা ভরণ-পোষণ যোগান দিচ্ছেন, প্রকৃত পক্ষে তারা তাদের পিতা নন। বরং যারা তাদেরকে জন্ম দিয়েছেন তারাই তাদের আসল পিতা। অনুরূপ ভাবে মেয়েরাও তাদের পিতার পরিচয়ে পরিচিত হবেন স্বামীর পরিচয়ে নন। এখানে পালক পুত্রকে প্রকৃত পিতার নামে ডাকার নির্দেশ প্রমাণ করে যে, স্ত্রীদেরকেও তাদের পিতার নামে ডাকতে হবে।

হযরত সাঈদ ইবনে যুবায়ের- হযরত ইবনে আব্বাস (রাঃ)কে বলতে শুনেছেন যে, রাসূল (সাঃ) বলেছেন ‘যে কেউ নিজেকে বাবার নাম ছাড়া অন্য নামে ডাকবে তার উপর "আল্লাহ", ফেরেশতা ও সমগ্র মানুষের লা‘নত বর্ষিত হবে।’ (মুসনাদে আহমাদ)
ইমাম বুখারী (রঃ) ও এই হাদীসটি হযরত সা‘দ (রাঃ) সূত্রে বর্ণনা করেছেন।
হযরত সা‘দ ও হযরত আবু বক্কর (রাঃ) হতে বর্ণিত, তাঁরা প্রত্যেকে বলেছেন: আমার দু’কান শুনেছে এবং আমার অন্তর মুহাম্মদ (সাঃ)'র এ কথা সংরক্ষণ করেছে যে, মহানবী (সাঃ) বলেছেন ‘যে ব্যক্তি জেনে শুনে নিজেকে নিজের পিতা ছাড়া অন্যের সাথে সংযুক্ত করে তার জন্য জান্নাত হারাম হয়ে যাবে’ (ইবনে মাজাহ)।
আবার হযরত আব্দুল্লাহ ইবন আমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত; তিনি হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) থেকে বর্ণনা করেছেন- তিনি (সাঃ) বলেছেন: যে কেউ নিজের বাবা ব্যতীত অন্যের পরিচয়ে পরিচয় দেয় সে জান্নাতের গন্ধও পাবে না, যদিও জান্নাতের সুঘ্রাণ ৭০ বছর হাঁটার রাস্তার দূরত্ব থেকেও পাওয়া যাবে, (মুসনাদে আহমাদ)।
এমন অনেক হাদীস রয়েছে যেখানে মহানবী (সাঃ) নারীদেরকে তাদের পিতার নামে ডেকেছেন। যখন পবিত্র কুরআনের আয়াত ‘আপনি আপনার নিকটতম আত্মীয়দের সতর্ক করে দিন' (আল-কুরআন, ২৬:২১৪) নাজিল হয়, তখন মহানবী (সাঃ) তাঁর আত্মীয়দের প্রত্যেককে ডেকে ডেকে বলেছিলেন: 'হে' অমুকের ছেলে অমুক! আমি পরকালে তোমার কোন উপকার করতে পারব'না। 'হে' অমুকের মেয়ে অমুক! আমি কিয়ামতের দিন তোমার কোন কাজে আসব'না (আল-কাশফুল মুবদি) কিয়ামতের মাঠেও প্রত্যেককে তার বাবার নাম ধরে ডাকা হবে। হাদীসের কিতাব সমূহে এ সংক্রান্ত অনেক হাদীস রয়েছে।

দ্বিতীয় খলীফা হযরত উমর (রাঃ)'র শাসনামলের এক বিখ্যাত ঘটনা হাদীসের বর্ণনায় এসেছে: তা হলো তিনি একরাতে যখন প্রজাদের খোঁজ-খবর নেয়ার জন্য বের হলেন তখন একজন মহিলার বাড়ির পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন যিনি স্বামীর বিরহে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছিলেন। তিনি পরদিন সকালে মহিলাটির খোঁজ-খবর নেয়ার জন্য লোক পাঠালেন। তাঁকে বলা হলো এ মহিলা হলেন অমুকের মেয়ে অমুক। তাঁর স্বামী "আল্লাহ'র" রাস্তায় জিহাদে রয়েছেন,(সুনানে সাঈদ ইবনে মানসুর)। এখানে প্রণিধানযোগ্য বিষয় হলো মহিলাটি বিবাহিত ছিলেন। তাঁর পরিচয়ের ক্ষেত্রে বলা হলো অমুকের মেয়ে অমুক। একথা বলা হলো'না যে, অমুকের স্ত্রী অমুক।

আরো যে সকল কারণে নারীদের বাবার নামে পরিচিত হওয়া উচিত তা হলো:
১.স্বামী ও স্ত্রীর মাঝে কোন রক্ত সম্পর্ক থাকে-না কিন্তু বাবা-মেয়ের রক্ত সম্পর্ক চিরদিনের।
২. স্বামী মারা গেলে স্ত্রী অন্য পুরুষকে বিয়ে করতে পারে, তখন এই নামের কি দশা হবে তা সহজেই অনুমেয়।
৩. স্বামী-স্ত্রী একে অপরের সাথে মনোমালিন্য হলে তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ ঘটতে পারে তখন এই নাম থাকে'না।
৪. স্বামী তো বিয়ের পর নিজের নাম পরিবর্তন করে না, তাহলে নারী কেন করবে?

★ এটা কি নারী অধিকারের লংঘন নয়?
মুসলিম সমাজের উচিত ইসলামকে পুরোপুরি অনুসরণ করা। আর যারা পরিপূর্ণ ইসলাম মানতে চান তাদের উচিত এসব বিষয়ে সজাগ ও সতর্ক থাকা। যাতে করে কোন অজুহাতেই আমরা সত্য ও সঠিক পথ ‘সিরাতুল মুস্তাকীম’ থেকে বিচ্যুত না হই।

★ সকল মুসলিম দেশের সবাই নামের মধ্যে বিন বা বিনতে ব্যাবহার করে, এই বিন বা বিনতের মানে হচ্ছে কে কার ছেলে বা কন্যা সন্তান তা তুলে ধরা। অর্থাৎ সন্তানদের নামের সাথে জম্ম পরিচয় নিশ্চিত করা হয়।
সুখকর বিষয় হচ্ছে, আমাদের দেশে এখন এই প্রথা চালু হয়েছে। অনেকেই বিন বা বিনতে লিখে থাকেন।

31/05/2020

আমাদের স্কুলের ৮৫ ব্যাচের বন্ধু Ibrahim Sumon ও তাসলিমার মামী, প্রিয় টিচার দিলরুবা শাহানাজ কেয়া টিচার কিছুক্ষণ আগে মারা গেছেন ( ইন্নানিল্লাহে .........রাজউন)।
তিনি গতকাল চট্রগ্রাম মেডিকেলে শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন। সন্ধেহ করা হচ্ছে, তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন।
তাঁর নামাজে জানাযা ও দাফন বাদ মাগরিব ভেলুয়াদীঘি জামে মসজিদে হবে।
"আল্লাহ" তাঁকে জান্নাতবাসী করুন।

07/05/2020

আমাদের ৮৫ ব্যাচের বন্ধু, প্রিয় মুখ হাবিবুল বাহার ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক জনিত কারণে ০৬.০৫.২০২০ সন্ধ্যা থেকে ল্যাব এইড হাসপাতালে সিসিইউ তে চিকিৎসাধীন। তার এনজিও গ্রাম করা হয়েছে। তার সহধর্মিণীর (ভাবী) সাথে আমার কথা হয়েছে, হাবিবুল এখন কিছুটা ভালোর দিকে আছে।
সবার নিকট দোয়ার দরখাস্ত করছি তার পরিবার,পরিজন‌ ‌ও বন্ধু বান্ধবের পক্ষ হয়ে।

হে আল্লাহ আপনি আমাদের বন্ধুকে সহি সালামতে রাখো। আ-মীন।

10/04/2020

সবাই ভালো আছেন"তো?
আমাদের কেউ কোনো সমস্যার সম্মুক্ষিন হল, আমাকে ইনবক্স করতে পারেন।
"আল্লাহ" আমাদের সহায় হোন।

24/11/2019

ডায়ালাইসিস-প্রতিস্থাপন ছাড়াই কিডনি রোগের সফল চিকিৎসার অদ্ভুত চ্যালেঞ্জ
প্রকাশিত: 23 November, 2019
কিডনিসহ দেহের অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপনের বিষয়ে জারি করা রুলের ওপর শুনানির সময় হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে এক নাটকীয় ঘটনার সৃষ্টি হয়। ডায়ালাইসিস ও কিডনি প্রতিস্থাপন ছাড়াই কিডনি রোগের সফল চিকিৎসক বলে নিজেকে দাবি করেন সালাউদ্দিন মাহমুদ নামের এক ব্যক্তি। আদালতে উপস্থিত সবার সামনে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন তিনি।
হাইকোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খন্দকার দিলীরুজ্জামানের বেঞ্চে শুনানিকালে বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) এমন দাবি করেন ওই ব্যক্তি।

আদালতে রিটকারীর পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রাশনা ইমাম। আইন ও সালিস কেন্দ্রের পক্ষে আইনজীবী জেড আই খান পান্না। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুদ্দিন খালেদ।
আদালতে শুনানিকালে আইনজীবীদের বক্তব্যে কিডনির ব্যয়বহুল চিকিৎসা, ডায়ালাইসিস ও কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্টের বিষয় বিস্তারিত উঠে আসে। মানবদেহে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন আইন ও বিধি প্রণয়ন সংক্রান্ত এক রিটে কিডনি ডায়ালাইসিস ও কিডনি প্রতিস্থাপনের শুনানির শেষ দিকে কোর্ট রুমের পেছনের সারির বেঞ্চ থেকে এক মধ্যবয়সী ব্যক্তি উঠে দাঁড়িয়ে বলেন, ‘মাননীয় আদালত, আমি কিছু বলতে চাই।’ এরপর তিনি আদালতের ডায়াসের কাছে গিয়ে বলেন, ‘মাই লর্ড, কিডনি চিকিৎসায় ডায়ালাইসিস কিংবা প্রতিস্থাপন কিছুরই দরকার নেই। আমি আমার ২০ বছরের গবেষণার মাধ্যমে কিডনি চিকিৎসায় এক যুগান্তকারী সফলতা আবিষ্কারে সক্ষম হয়েছি।’

এসময় এজলাসকক্ষে হাসির রোল পড়ে যায়। সবাই প্রায় হতভম্ব হয়ে যান যে, ওপেন কোর্টে এ ব্যক্তি কোথা থেকে এসে কী বলা শুরু করেছেন! তখন হাইকোর্ট ওই ব্যক্তির কাছে জানতে চান, ‘আপনার পরিচয় কী, কে আপনি, কী করেন?’ এরপর তিনি আদালতে বলেন, ‘আমার নাম সালাউদ্দিন মাহমুদ। কেমিস্ট্রিতে লেখাপড়া শেষ করে কিডনি চিকিৎসা নিয়ে গবেষণা করেছি। আমি একজন কিডনি চিকিৎসক। টিকাটুলিতে আমার চেম্বার।’

এরপর আদালত তাকে বলেন, ‘আপনাকে তো আমরা মামলার বিষয়ে এখানে ডাকিনি। আর আপনি কী বলছেন? আপনি কেমিস্ট্রিতে লেখাপড়া শেষ করে কিডনি চিকিৎসা করেন?
এরপর আদালতে সালাউদ্দিন মাহমুদ বলেন, আমার কাছে হাজার হাজার কিডনি রোগী এসে ভালো হয়েছে। ডায়ালাইসিসের রোগী এসে ভালো হয়েছে, তাদের আর কখনোই ডায়ালাইসিস লাগেনি। এমনকি আমার কাছে একবার যে চিকিৎসা করেছ তার জীবনে আর কখনোই কিডনির সমস্যাই হয়নি বলে দাবি করেন এই ব্যক্তি।

তিনি দাবি করেন, সুপ্রিম কোর্টের অনেক আইনজীবী, সমাজের বড় বড় ব্যক্তি, এমনকি রওশন এরশাদও তার কাছ থেকে কিডনির চিকিৎসা নিয়েছেন।
এসময় আদালতে উপস্থিত আইনজীবী, সাংবাদিকসহ সবার মাঝে একটা কৌতূহলী আর হাস্যকর অনুভূতির তৈরি হয়। তবে, আদালত কক্ষে চলা এরকম অদ্ভূত প্রেক্ষাপটকে যেন নাটকীয়তায় রূপ দেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সিরাজুল আলম ভূঁইয়া।
এই আইনজীবী দাঁড়িয়ে বিচারকদের উদ্দেশে বলেন, ’মাই লর্ড, আমার এক নিকট আত্মীয় ওনার ভেষজ ওষুধ খেয়ে কিডনি রোগ থেকে পুরোপুরি সুস্থ হয়েছেন।’ রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর মুখ থেকে এ কথার শোনার পর যেন পুরো আদালত কক্ষ স্তম্ভিত।
আদালত এসময় আইনজীবী সিরাজুল আলম ভূঁইয়াকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনি কি ঠিক বলছেন? আপনার আত্মীয় সুস্থ হয়েছেন উনার ওষুধ খেয়ে? এর জবাবে সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘মাই লর্ড, আমার আত্মীয় পুরোপুরি সুস্থ হয়ে গেছেন এবং তার এখন কিডনির সমস্যা নেই।’ তখন আদালত বলেন, ‘তাহলে তো একে পুরস্কার দেয়া উচিত। একে তো সরকারের প্রমোট করা উচিত। যদি তার এই চিকিৎসা পদ্ধতি সঠিক হয়, তাহলে তো এটা একটা বিস্ময়।’

এ পর্যায়ে কিডনি চিকিৎসক দাবি করা সালাউদ্দিন মাহমুদ আদালতকে বলেন, ‘মাই লর্ড, আমার ব্যাপারে খোঁজ নিতে পারেন। আমার চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে খোঁজ নিতে পারেন। আপনারা দেখতে পারেন যে, আমার চিকিৎসায় কিডনি রোগী সুস্থ হয় কি না। আমি চ্যালেঞ্জ দিতে পারি, শেষ মুহূর্তে থাকা কোনো কিডনি রোগীও যদি আমার চিকিৎসা নেয় তাহলে সে পরিপূর্ণ সুস্থ হবেন।’
এরপর হাইকোর্ট রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে বলেন, ‘সালাউদ্দিন মাহমুদের বিষয়টি নিয়ে আপনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সরকারের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলতে পারেন। সত্যিই যদি কিডনি চিকিৎসায় ওনার কোনো সফল আবিষ্কার থেকে থাকে তাহলে তো উনি প্রশংসার দাবিদার।’
যোগাযোগ: ০১৭১৫০৯৩৬৬১
০১৮৮৫৯৬৬৪৬১-৭০
ঢাকা অফিস
২৩/৫/সি কে এম দাস লেন
টিকাটুলি, ঢাকা-১২০৩

নোয়াখালী অফিস
অনন্তপুর, মাইজদী
নোয়াখালী গেইট, নোয়াখালী- ৩৮০০।
www.dakwf.org
E-mail: [email protected]

05/06/2019

❤️ঈদ মোবারক❤️

ঈদের শুভেচ্ছা রইলো

18/10/2018

একজন কিংবদন্তীর বিদায় !

"ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন" ।

আর দেখা যাবে না AB তোমায়
শান্তিতে ঘুমাও তুমি।

★ সেই তুমি কেন এত অচেনা হলে,
সেই আমি কেন তোমাকে দুঃখ দিলেম,
কেমন করে এত অচেনা হলে তুমি,
কিভাবে এত বদলে গেছি এই আমি ....

★ কতরাত আমি কেঁদেছি, বুকের গভীরে কষ্ট নিয়ে
শূন্যতায় ডুবে গেছি আমি, আমাকে তুমি ফিরিয়ে নাও
তুমি কেন বোঝনা, তোমাকে ছাড়া আমি অসহায়
আমার সবটুকু ভালোবাসা তোমায় ঘিরে ....

★ আরো বেশি কাঁদালে উড়াল দেব আকাশে ...

★ সবাই বলে ঐ আকাশে লুকিয়ে আছে,
খুজে দেখ পাবে দু'নক্ষত্র মাঝে।

★ এই রূপালী গিটার ফেলে একদিন চলে যাবো দূরে বহুদূরে
সেদিন তুমি অশ্রু রেখো গোপন করে।।

05/10/2018

শিক্ষক দিবসে শ্রদ্ধা জানাই তাদের,যারা যত্নের সহিত তৈরী করে দিয়েছেন আমাদের জ্ঞানের ভিত।
আমাদের প্রিয় শিক্ষক/শিক্ষিকাগণ যে যেখানেই থাকুন না কেন "আপনাদের স্মরন করি শ্রদ্ধার সহিত"।

Want your school to be the top-listed School/college in Chittagong?

Click here to claim your Sponsored Listing.

Location

Category

Telephone

Website

Address


Pahartali
Chittagong
Other Education in Chittagong (show all)
CHITTAGONG CANTONMENT PUBLIC COLLEGE CHITTAGONG CANTONMENT PUBLIC COLLEGE
Chittagong Cantonment , Biozid
Chittagong, 4209

ALLAH AMAaY GYAAN DAaO.....This is the most prestegious college in chittagong .....

Innovative Learning Innovative Learning
Jamal Khan
Chittagong

Online tuition for classes 9-12 (National Curriculum). One-to-one care on Higher Mathematics & Physi

Bangla &BD.Studies care. Bangla &BD.Studies care.
Panchlish
Chittagong

A Coaching For O'Level & SSC Bangla & BD.Studies/BGS

Khan Safety Academy Khan Safety Academy
Chittagong

“Teaching the world to be careful is a constructive service worthy of God’s great gift of life.

Target School Target School
Chittagong

Hi,Am here to show you just enlighteing way to be unique in your life.

EDU ECON Acumen Society EDU ECON Acumen Society
EAST DELTA UNIVERSITY
Chittagong, 4209

Provide students with a platform to develop their understanding of economic and business issues

Way To Jannah Academy Way To Jannah Academy
East Rampur, Halishahar
Chittagong

Way To Jannah Academy is an online educational institution. Our ultimate goal is to enter Jannah.

Learn English with Pervez Islam Learn English with Pervez Islam
Chittagong

This page will definitely help you learn English with fun. Let's learn English in the easiest way.

Science & Technology  Bangla Science & Technology Bangla
Dohazari, Chandanaish, Chittagong
Chittagong

It is a very helpful page.you can know many educational contant,news,product etc.For Learning & know

Arfin's Academy Arfin's Academy
Bacha Mia Road, Pahartali
Chittagong, 4202

Subject for students class:- 9-10 (G.math,H.math,Physics,Chemistry,Biology) and for Inter 1st and 2n

Amran's Teaching Home Amran's Teaching Home
Badurtala Jonghi Shah Majar Lane
Chittagong

Amran's Teaching Home is a non profitable educational institute in Chittagong. Owner & Director: Amr

Perfect Coaching Kutubdia Perfect Coaching Kutubdia
Kutubdia, Cox’s Bazar
Chittagong

"If you are not willing to learn,no one can help you.If you are determined to learn,no one can stop u